নিউজ ডেস্ক: রাশিয়া উদ্ভাবিত বিশ্বের প্রথম নভেল করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। ইতোমধ্যে রুশ বিজ্ঞানীদের তৈরি করোনার এই ভ্যাকসিন নিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের মেয়ে।

মঙ্গলবার (১১ আগস্ট) রুশ সংবাদমাধ্যম আরটির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। যদিও, যুক্তরাষ্ট্র-কানাডাসহ কয়েকটি দেশ রাশিয়ার বিরুদ্ধে হ্যাকিং চালিয়ে করোনা টিকা সম্পর্কিত তথ্য হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ এনেছে। কিন্তু, ক্রেমলিনের পক্ষ থেকে ওইসব অভিযোগ উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

এদিকে দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন আরটি ‍নিউজকে বলেছেন, ইতোমধ্যে রুশ বিজ্ঞানীদের তৈরি করোনার এই ভ্যাকসিন নিয়েছেন তার মেয়ে। তবে করোনা টিকা শরীরে নেওয়ার পর তার মেয়ের শরীরের তাপমাত্রা কিছুটা বেড়ে গিয়েছিল। কিন্তু, কিছু সময় পরই সবকিছু ঠিকঠাক হয়ে যায়।

তিনি আরো বলেন, মস্কোর গামালিয়া ইন্সটিটিউটের তৈরিকৃত করোনার এই ভ্যাকসিন মঙ্গলবার রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সবুজ সংকেত পেয়েছে। কোভিড-১৯ এর এই ভ্যাকসিনের গণহারে উৎপাদন শিগগিরই শুরু হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট।

এর আগে, মস্কোর গ্যামেলিয়া ইনস্টিটিউট ও সামরিক বাহিনীর যৌথ উদ্যোগে ওই করোনা টিকার উদ্ভাবন সম্পন্ন হয়, কয়েকদফা ট্রায়াল চালানোর পর, দেশটির বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে টিকা অনুমোদনের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়।

এদিকে, রাশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী ট্যাটিয়ানা গোলিকোভা বলেছেন, সেপ্টেম্বরের শুরুর দিকে স্বাস্থ্য কর্মীদের মাঝে প্রথম এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হবে। তবে সাধারণ জনগণের জন্য ভ্যাকসিনটি সহজলভ্য হবে আগামী বছরের জানুয়ারির শুরুতে।

প্রসঙ্গত, চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট বৈশ্বিক মহামারি কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে লড়তে ২০০ টির বেশি টিকা উদ্ভাবন প্রক্রিয়া চলমান আছে। তার মধ্যে রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি উদ্ভাবিত করোনা টিকা অনেকটাই এগিয়ে। রাশিয়া এর আগে ঘোষণা দিয়েছিল সবার আগে তারাই করোনা টিকা বাজারে আনতে যাচ্ছে।