নিউজ ডেস্ক: ঢাকার আশুলিয়ার এক গৃহবধূকে (২০) গণধর্ষণের ভিডিও মোবাইল ফোনে ধারণ করে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে ভাইরাল করার অভিযোগে পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আশুলিয়ার থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ জিয়াউল ইসলাম।

শুক্রবার (৯ অক্টোবর) সকালে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী গৃহবধূ। এর আগে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে আশুলিয়া ও মিরপুরসহ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে বুধবার দিবাগত রাতে আশুলিয়ার রুস্তমপুর এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

গ্রেফতাকৃত পাঁচজন হলেন, সাইফুল ইসলাম (১৮), অন্তর মিয়ার (১৯), জ্যোতি সাহা (২০), পাপ্পু সাহা (১৯) ও মিলন (২১)। এছাড়া রতন সাহা (২৩)ও উজ্জল মিয়া (২০) নামে আরো দুই অভিযুক্ত পলাতক রয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, অভিযুক্ত সাইফুল ইসলামের জন্মদিনের কথা বলে ভুক্তভোগী নারীকে ডেকে নেয়া হয়। পরে তাকে আশুলিয়ার রুস্তমপুর এলাকার জঙ্গলে নিয়ে যায়। সেখানে সবাই মিলে তাকে গণধর্ষণ করে তা মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা।

ভুক্তভোগী গৃহবধূর অভিযোগ করেন, হাত-পা ও মুখ চেপে ধরে রতন তার সঙ্গীরা তাকে গণধর্ষণ করে ও মোবাইল ফোনে ভিডিও ফুটেজ ধারণ করেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে আশুলিয়ার থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ জিয়াউল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় শুক্রবার সকালে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূ। এরই মধ্যে পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে। তবে ভিডিও ফুটেজ এখনও উদ্ধার করা সম্ভাব হয়নি। তবে অভিযান চলছে বলে জানান তিনি।

তিনি আরো জানান, ভুক্তভোগী গৃহবধূকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া গ্রেফতার পাঁচজনকে সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়েছে। পলাতক বাকি আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।