মিয়ানমার বেসামরিক সরকার ব্যবস্থায় ফিরলে ২০১৫ সালে নির্বাচনে জিতে সু চি মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর হন।
বড় ধরনের কোনো অপরাধের কথা স্বীকার না করলেও সু চি গত মাসে এক অনুষ্ঠানে বলেন, রাখাইনের পরিস্থিতি হয়ত আরও ভালোভাবে সামলানো যেত।

নোবেল ফাউন্ডেশনের প্রধান বলেন, ‘মিয়ানমারে তাঁকে (সু চি) আমরা যা করতে দেখছি, তা নিয়ে অনেক প্রশ্ন উঠেছে। আমরা মানবাধিকারের পক্ষে দাঁড়িয়েছি, যেটি আমাদের মূল মূল্যবোধের একটি। সুতরাং বলা যায়, এ জন্য তিনি দায়ী। এটা খুবই দুঃখজনক।’ তথ্যসূত্র: রয়টার্স।