নিউজ ডেস্ক: গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৩৭ জনের প্রাণহানি হয়েছে। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মোট প্রাণহানি হলো তিন হাজার ৬৯৪ জন। একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরো দুই হাজার ৫৯৫ জন। ফলে দেশে এখন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দুই লাখ ৭৯ হাজার ১৪৪ জন।

সোমবার (১৭ আগস্ট) বিকালে সংবাদমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির এই সবশেষ তথ্য জানানো হয়।

অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সকাল ৮টা পর্যন্ত শনাক্ত ২ হাজার ৫৯৫ জনকে নিয়ে দেশে করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৭৯ হাজার ১৪৪ জন হল। আর গত এক দিনে মারা যাওয়া ৩৭ জনকে নিয়ে দেশে করোনাভাইরাসে মোট মৃতের সংখ্যা ৩ হাজার ৬৯৪ জনে দাঁড়াল।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় যারা মারা গেছেন, তাদের মধ্যে ২৮ জন পুরুষ এবং নয়জন নারী। এদের ৩১ জন হাসপাতালে এবং ছয়জন বাড়িতে মারা গেছেন। এদের মধ্যে ত্রিশোর্ধ্ব ছিলেন তিনজন, চল্লিশোর্ধ্ব আটজন, পঞ্চাশোর্ধ্ব আটজন এবং ষাটোর্ধ্ব ছিলেন ১৮ জন।

আরো বলা হয়, মৃত ৩৭ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ছিলেন ২০ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের চারজন, রাজশাহী বিভাগের তিনজন, খুলনা বিভাগের ছয়জন, বরিশাল বিভাগের একজন এবং রংপুর বিভাগের ছিলেন তিনজন। আর মোট মৃতদের মধ্যে পুরুষ দুই হাজার ৯১৮ জন (৭৮ দশমিক ৯৯ শতাংশ) এবং নারী ৭৭৬ জন (২১ দশমিক ০১ শতাংশ)।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ২০ দশমিক ৭২ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ২০ দশমিক ৪৬ শতাংশ। আর রোগী শনাক্ত তুলনায় সুস্থতার হার ৫৭ দশমিক ৫৩ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩২ শতাংশ।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন ৬৪০ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৮৭৮ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন ৬২ হাজার ৭১২ জন। আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন ৪২ হাজার ৬১১ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ২০ হাজার ১০১ জন।

এদিকে সারাবিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দুই কোটি ১৮ লাখ ৪২ হাজার ছাড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা সাত লাখ ৭৩ হাজারের বেশি। তবে সুস্থ রোগীর সংখ্যা এক কোটি ৪৫ লাখ ৭০ হাজারেরও বেশি।