নিউজ ডেস্ক: দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৩৯ জনের প্রাণহানি হয়েছে। এ নিয়ে মোট প্রাণহানি হয়েছে তিন হাজার ৮৬১ জনের। একই সময়ে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৪০১ জন করোনা রোগী। এ নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে দুই লাখ ৯০ হাজার ৩৬০ জন।

শুক্রবার (২১ আগস্ট) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় ৯১টি পরীক্ষাগারে ১৩ হাজার ১৫৫টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ১২ হাজার ৯৪৩টি নমুনা। একই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন আরো দুই হাজার ৪০১ জন। ফলে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল দুই লাখ ৯০ হাজার ৩৬০ জনে। এ নিয়ে মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১৪ লাখ ২০ হাজার ৪৯৯টি।

আরো জানানো হয়, ২৪ ঘণ্টায় মৃত ৩৯ জনের মধ্যে ২৭ জন পুরুষ ও নারী ১২ জন। এদের মধ্যে হাসপাতালে মারা গেছেন ৩৬ জন ও বাড়িতে তিনজন। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ১৮ দশমিক ৫৫ শতাংশ। এখন পর্যন্ত শনাক্তের হার ২০ দশমিক ৪৪ শতাংশ। শনাক্তের বিবেচনায় সুস্থতার হার ৫৯ দশমিক ৪৫ শতাংশ এবং মৃত্যুহার এক দশমিক ৩৩ শতাংশ।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত ৩৯ জনের মধ্যে বিশোর্ধ্ব একজন, ত্রিশোর্ধ্বে চারজন, চল্লিশোর্ধ্ব চারজন, পঞ্চাশোর্ধ্ব পাঁচজন, ষাটোর্ধ্ব ২৫ জন রয়েছেন। বিভাগওয়ারি পরিসংখ্যান অনুসারে, গত ২৪ ঘণ্টায় মোট মৃতের ঢাকা বিভাগে ২৩ জন, চট্টগ্রামে ৫, রাজশাহীতে একজন, খুলনায় ৩, বরিশালে ২, সিলেটে ৪ এবং ময়মনসিংহ বিভাগের একজন রয়েছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন ৫৮০ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৫৭৬ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন ৬৫ হাজার ৬১৬ জন। আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন ৪৫ হাজার ৩২১ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ২০ হাজার ২৯৫ জন।