বুধবার (১১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা ৬টার দিকে নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুর এলাকা থেকে দুই রাউন্ড গুলি, ম্যাগাজিন ও একটি বিদেশি পিস্তলসহ হুমায়ুন ও মুনছুর ওরফে মন্নুছ নামে দুই যুবককে আটক করেছে থানা পুলিশ। ছবি: সংগৃহীত

নিজস্ব প্রতিবেদক: নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ নেতাকর্মীদের ওপর অতর্কিত হামলার প্রস্তুতিকালে দুই রাউন্ড গুলি, ম্যাগাজিন ও একটি বিদেশি পিস্তলসহ দুই যুবককে আটক করেছে থানা পুলিশ।

বুধবার (১১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা ৬টার দিকে উপজেলার নাজিরপুর এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। আটককৃতরা উপজেলার জুমাইনগর গ্রামের ইয়াকুব মন্ডলের ছেলে হুমায়ুন (২০) ও ঝাউপাড়া গ্রামের রায়হান মোল্লার ছেলে মুনছুর ওরফে মন্নুছ (২০)। এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। আটক দুই যুবক জুমাইনগর এলাকার যুবলীগ নেতা শরিফুল ইসলামের সাগরেদ বলে জানা গেছে।

গুরুদাসপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আনিছুর রহমান বলেন, আটককৃত দুই যুবক স্থানীয় সংসদ সদস্য আবদুল কুদ্দুসের লোক। তার ইঙ্গিতেই আমাদের ওপর হামলা চালানোর চেষ্টাকালে তারা আটক হয়।

পুলিশ জানা যায়, বুধবার বিকাল থেকে নাজিরপুর উচ্চবিদ্যালয় মাঠে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের চারটি ওয়ার্ডের নেতাকর্মীদের নিয়ে সম্মেলন করছিল। অপরদিকে অদূরে নাজিরপুর ডিগ্রি কলেজ মাঠে ইউনিয়ন যুবলীগের পক্ষ থেকে বিজয় দিবস উদযাপনের লক্ষ্যে প্রস্তুতিসভা করে। আওয়ামী লীগের সম্মেলনে নাজিরপুর ইউনিয়ন সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো. আইয়ুব আলী সভাপতিত্ব করেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক গুরুদাসপুর পৌর মেয়র মো. শাহনেওয়াজ আলী, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মো. জাহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

অন্যদিকে মহান বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে নাজিরপুর ডিগ্রি কলেজ মাঠে সংসদ সদস্য আবদুল কুদ্দুস সমর্থিত নাজিরপুর ইউনিয়ন যুবলীগের প্রস্তুতিসভা চলছিল। উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও ভাইস চেয়ারম্যান মো. আলাল শেখ সেখানে সভাপতিত্ব করেন। উপস্থিত ছিলেন নাজিরপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. শওকত রানা, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. রাশেদ সরকার, জেলা পরিষদ সদস্য মো. লুৎফর রহমান হীরা প্রমুখ।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মো. শাহনেওয়াজ আলী বলেন, নাজিরপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডের কমিটি গঠন অনুষ্ঠানে অতর্কিতভাবে ওই দুই যুবক অস্ত্রসহ ঢুকে পড়লে নেতাকর্মীদের সহায়তায় পুলিশ তাদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

এব্যাপারে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস এমপির মুঠোফোনে যোগাযোগ করে না পাওয়ায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মোজাহারুল ইসলাম বলেন, আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। তদন্তের স্বার্থে এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছিল।