নিউজ ডেস্ক: নাটোরের গুরুদাসপুরের নাজিরপুর নাজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা শওকত রানা লাবুর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগে থানায় এজাহার দাখিল করেছেন আনসার আলী নামের এক ব্যক্তি।

সোমবার (১২ অক্টোবর) সন্ধ্যায় গুরুদাসপুর থানায় এই অভিযোগ দায়ের করেন তিনি। ভুক্তভোগী আনসার আলী মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে ও পেশায় টমটম চালক। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

ভুক্তভোগী ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার (১০ অক্টোবর) দুপুর ১টার দিকে নাজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদে রানীগ্রামের আনসারের ছেলে শাহিনকে (২০) কৌশলে ডেকে এনে দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন চেয়ারম্যান লাবু ও তার সহযোগীরা। আনসার আলী অনেক আকুতি মিনতি করে চেয়ারম্যান লাবুকে ৫০ হাজার টাকা দেন। কিন্তু ততক্ষণে বিকেল পাঁচটায় তার ছেলেকে থানার হেফাজতে নিয়ে আসা হয়। তারপর তাকে ১৪ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

এদিকে চেয়ারম্যান লাবু মুঠোফোনে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আসন্ন ইউপি নির্বাচনে আমার ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করার জন্য আনসার আলীর মাধ্যমে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী এসব করাচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

অন্যদিকে অভিযোগ অস্বীকার করে নাজিরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আইয়ুব আলী বলেন, এ ঘটনা কিছুই জানি না। তবে শুনেছি আনসারের ৫০ হাজার টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য চেয়ারম্যান লাবু চেষ্টা তদবির চালাচ্ছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাহারুল ইসলাম বলেন, চেয়ারম্যান শওকত রানা লাবু ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে দেওয়া অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে ইভটিজিং করার দায়ে শাহিনকে ১৪ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের রায় দিয়েছেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. আবু রাসেল।