নিজস্ব প্রতিবেদক: গুরুদাসপুর উপজেলার রোকন এন্টারপ্রাইজ নামক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে নারিবাড়ী মোজাম্মেল হক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হতে পাঁচ শিষা অভিমুখে রাস্তা পূনঃনির্মাণ কাজে নিম্নমানের এই সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে। খোয়ার সাথে পুরাতন কার্পেটিং ও ফিনিসিং এর নামে ২/৩ নং ইটের ডাষ্ট খোয়া ব্যবহার করে রাস্তা নির্মাণ কাজ করছে প্রতিষ্ঠানটি। আর এই পূনঃনির্মাণ কাজে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারে খোদ উপজেলা প্রকৌশলী রতন কুমার ফৌজদারও সাফাই গেয়েছেন।

উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তরের অধীনে জিওবিএম প্রকল্পের আওতায় ২৬ লাখ ৭২ হাজার ৯৬৫ টাকা ব্যয়-বরাদ্দে উপজেলার নারি বাড়ী মোজাম্মেল হক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হতে বাঁধ বাজার পর্যন্ত ১২শ’ মিটার রাস্তার নির্মাণ কাজ করা হচ্ছে। ওই কাজের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান রোকন এন্টারপ্রাইজ।

স্থানীয় বাসিন্দরা জানান, পুরাতন রাস্তার কার্পেটিং ও রাস্তার খোয়া আলগা করে তা মিশিয়ে রাস্তায় ব্যবহার করা হয়েছে। পরে সেগুলো রোলার দিয়ে পিষে সমান করা হয়। সেই সাথে কিছু কিছু স্থানে অত্যন্ত নিম্নমানের ডাষ্ট খোয়া ব্যবহার করা হয়েছে। ইতিপুর্বে কোন রাস্তা এভাবে নির্মাণ করতে দেখেননি বলে স্থানীয়রা দাবি করেন।

এব্যাপারে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান রোকন এন্টারপ্রাইজের স্বত্তাধিকারী রোকন উদ্দিন জানান, পুরাতন কার্পেটিং রাস্তায় ব্যবহার করা হলে রাস্তা শক্ত হয়। তা ব্যবহারেও কোন বাধা নেই। রাস্তা শক্ত ও ফিনিসিং ভাল করার জন্য ওই ডাষ্ট খোয়া ব্যবহার করা হয়েছে।

উপজেলা প্রকৌশলী রতন কুমার ফৌজদার জানান, পুরাতন রাস্তার কার্পেটিং তুলে ফেলে দেওয়ার নিয়ম থাকলেও তা ব্যবহারে রাস্তা শক্ত হয়। আর ডাষ্ট খোয়া গুলো ভাল ফিনিসিং এর জন্য ব্যবহার করা হয়েছে।