নিজস্ব প্রতিবেদক: গুরুদাসপুরে ‘নদী বাঁচাও দেশ বাঁচাও’ শ্লোগানকে সামনে রেখে চারঘাট ও আটঘরিয়ার স্লুইচগেট অপসারণের দাবিতে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টায় গুরুদাসপুর পৌর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিদ্যালয় মিলনায়তনে উপজেলা নদী রক্ষা আন্দোলন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক আতোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বড়াল রক্ষা আন্দোলন কমিটির সদস্য সচিব ও চলনবিল রক্ষা আন্দোলনের সমন্বয়কারী মিজানুর রহমান।

এসময় বক্তব্য রাখেন জাতীয় নদী রক্ষা কমিটির সদস্য জাহাঙ্গীর আলম, গুরুদাসপুর নদী রক্ষা আন্দোলন কমিটির সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান মজনু, এমদাদুল হক, আলী আক্কাছ, আবুল কালাম আজাদ, অধ্যাপক একরামুল হক, ইমাম হাছাইন পিন্টু প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, পদ্মার উৎস মুখ থেকে উৎপত্তি বড়াল ও নন্দকুজা নদীকে রক্ষা করতে হলে চারঘাট ও আটঘরিয়া স্লুইচগেট অপসারণ করতে হবে। কারণ বড়ালের মুখ ৫শ’ ফিট দৈর্ঘ্য থাকলেও ১৯৮১ সালে ৩০ ফিটের স্লুইটগেট নির্মাণ করে নদী দুটিকে হত্যা করা হয়েছে।

বক্তারা আরো বলেন, চারঘাট থেকে বাঘাবাড়ি ২২০ কিলোমিটারের দৈর্ঘ্য এ নদীকে বাঁচানোর জন্য বড়াল, নন্দকুজা, আত্রাই ও চলনবিল রক্ষা আন্দোলন কমিটি দীর্ঘদিন ধরে ওই স্লুইচগেট অপসারণের জন্য আন্দোলন করছে। সরকার জনতার দাবির মুখে বারবার স্লুইচগেট দুটি অপসারণের সিদ্ধান্ত নিলেও পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাধার কারণে তা বাস্তবায়ন হচ্ছে না।

চারঘাট ও আটঘরিয়া স্লুইচগেট দুটি অপসারণের দাবিতে ২৮ ফেব্রুয়ারি আবারো এক সমাবেশ করবে বলে জানিয়েছে নদী রক্ষা আন্দোলন কমিটি।