বিশেষ প্রতিবেদক: বছরের পাঁচমাস জলাবদ্ধতায় ডুবে থাকে নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার আলিপুর দাখিল মাদরাসা। অপরিকল্পিতভাবে পুকুর খননের কারনে মাদরাসার মাঠ পানিতে নিমজ্জিত থাকে। এ বছর বন্যা ও ভারি বর্ষণের কারণে স্থায়ী জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা না হলে মাদরাসাটির বেহাল দশা দূর হবে না।

এদিকে বিনা বেতনে প্রায় ২৪ বছর ধরে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করে আসছেন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা। মাদরাসা ও স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, ১৯৬৭ সালে উপজেলা সদর হতে ২৪ কিমি দূরে আলীপুর গ্রামে মরহুম আব্দুল কাদের মুন্সি ও তার ছোট ভাই মরহুম ইব্রাহীম অবহেলিত এ জনপদে ধর্মীয় শিক্ষার প্রসার ঘটাতে নিজেদের দান করা এক একর জমির ওপর মাদরাসাটি প্রতিষ্ঠা করেন।

প্রথমে মাদরাসায় এবতেদায়ী পরে দাখিল পর্যন্ত পাঠদান শুরু হয়। খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলতে চলতে ১৯৯৩ সালে বন্ধ হয়ে যায় ওই দাখিল মাদরাসা। এরপর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এলে স্থানীয় সংসদ সদস্য মো. আব্দুল কুদ্দুুসের সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠানটি আবার চালু হয়। বর্তমানে ওই মাদরাসায় ২০ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা ২৭০জন শিক্ষার্থীদের পাঠদান করাচ্ছেন এবং প্রতি বছরই ফলাফল ভাল হচ্ছে।

মাদরাসার সুপার মো. আশরাফুল আলম বলেন, বছরের ৫ মাস এই প্রতিষ্ঠানে পানি জমে থাকে। শিক্ষার্থীদের পাঠদান করানো হয় কষ্টসাধ্য। মাঠে এখনও একমাজা পানি। আশা ছিলো গত বছর আমাদের মাদরাসা এমপিওভুক্ত হবে কিন্তু হয়নি। স্থানীয় এমপি আব্দুল কুদ্দুস মাঝে মধ্যে টিআর এর অনুদান দিলেও তাতে মাদরাসা চালানোর পক্ষে যথেষ্ট নয়। এভাবে বিনা বেতনে মাদরাসা চালাতে গিয়ে আমাদের সংসার চালানো কঠিন হয়ে পড়েছে।

মাদরাসা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি শাহ আলম মাস্টার জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা বেতন পায় না। অন্ততপক্ষে জলাবদ্ধতা দূর করে একটা বিল্ডিং করে দিলে প্রতিষ্ঠানটি টিকে রাখা সম্ভব হতো।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান বলেন, মাদরাসাটির ফলাফল ভাল হলেও এমপিওভুক্ত না হওয়ায় ২৪ বছর ধরে শিক্ষক কর্মচারীরা বেতন পান না। তারা বেকারগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন। তারওপর বিদ্যালয়ে জলাবদ্ধতা। এতে মাদরাসা চালানো কঠিন হচ্ছে।

কৃতজ্ঞতা: মো. আখলাকুজ্জামান