নিউজ ডেস্ক: বিয়ে সংক্রান্ত শত্রুতার জেরে নাটোরের নলডাঙ্গায় শ্যামল নামের এক নরসুন্দরকে ছুরিকাঘাতে আহত করেছে সোহেল নামের এক ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নলডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম ও বিপ্রবেলঘরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন।

শুক্রবার (২৪ জুলাই) সন্ধ্যায় নলডাঙ্গা উপজেলার কাঠুয়াগাড়ি সড়কে এই ঘটনা ঘটে। আহত শ্যামল (৩৫) নাটোর সদর থানার মাঝদিঘা গ্রামের মৃত গোপাল ও বারঘরিয়া বাজারের নরসুন্দরের কাজ করেন। আটক সোহেল হোসেন (২৬) নাটোর সদর থানার ছাতনী ইউনিয়নের মৃত শরিফুল ইসলামের ছেলে।

পরে আহত শ্যামলকে স্থানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেছে। এ ঘটনায় সোহেল হোসেনকে লোকজন আটক করে নলডাঙ্গা থানা পুলিশে সোপর্দ করেছে।

এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে বিপ্রবেলঘরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন জানান, শুক্রবার সন্ধ্যায় নরসুন্দর শ্যামল কাজ শেষে নলডাঙ্গা উপজেলার কাঠুয়াগাড়ি সড়ক দিয়ে বাড়ি ফিরছিল। এসময় শ্যামলকে পিছন দিক থেকে যুবক ছুরি আঘাত করে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে স্থানীয়রা সোহেলকে হাতেনাতে ধরে ফেলে। পরে নলডাঙ্গা থানা পুলিশে খবর দিলে পুলিশ এসে সোহেলকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে নলডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম জানান, বিয়ে সংক্রান্ত পূর্ব শত্রুতার জেরে শ্যামলকে ছুরিকাঘাত করে থাকতে পারে। আহত শ্যামলকে নাটোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আটক সোহেল মাদকাসক্ত বলে মনে হচ্ছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান তিনি।