নিউজ ডেস্ক: নাটোরে নতুন করে আরো ১৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে একজন ফলোআপসহ ৬ জন নাটোর সদর উপজেলার, ৩ জন গুরুদাসপুর উপজেলার, ৩ জন সিংড়া উপজেলার ও ২ বড়াইগ্রাম উপজেলার রয়েছেন। এনিয়ে নাটোর জেলায় মোট আক্রান্ত হয়েছেন ১৪৮ জন।

রোববার (২১ জুন) রাতে এই তথ্য জানায় নাটোর সিভিল সার্জন অফিস। এ পর্যন্ত ৫৪ জনের বাইরে নতুন করে কেউ সুস্থ না হওয়ায় সংক্রমিত অবস্থায় রয়েছেন ৯৪ জন। যারা বিভিন্নভাবে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

জানা গেছে, নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নাটোর সদর উপজেলার ৬ জন আক্রান্তের মধ্যে মাদরাসা মোড় এলাকার একজন ফলো আপ রিপোর্টে করোনা পজেটিভ এসছে। অর্থাৎ প্রকৃত আক্রান্ত সংখ্যা ৫ জন। এর মধ্যে নাটোর শহরের কাপুড়িয়া পট্টি এলাকার এলাকার একজন আইনজীবী ও তার সন্তান ও ভাইয়ের স্ত্রী করোনা পজেটিভ হয়েছেন। এর আগে ওই আইনজীবীর ভাই ব্যাংক কর্মকর্তা করোনা পজেটিভ শনাক্ত হন।

এছাড়া ছাতনী এলাকার একজন ব্র্যাক ব্যাংক কর্মকর্তা করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছেন। অপরদিকে ঈশ্বরদীতে বসবাসকারী একজন ব্র্যাক ব্যাংক কর্মকর্তা যিনি নাটোরে নমুনা দিয়েছিলেন তিনিও করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছেন। অন্যদিকে আজ শহরের মাদ্রাসা মোড় এলাকায় পূর্বের আক্রান্ত ব্যবসায়ীর দ্বিতীয় দফা পরীক্ষাতেও করোনা পজিটিভ এসেছে।

এদিকে সিংড়ায় আক্রান্ত ৩ জনই একই পরিবারের ব্যবসায়ী বাবা ও তার ২ ছেলের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। তাদের বাড়ি সিংড়া পৌরসভার চলনবিল মহিলা কলেজ সংলগ্ন এলাকায়।

এছাড়া গুরুদাসপুরে পৌর এলাকার ইলেকট্রনিক্স ব্যবসায়ী ও তার স্ত্রী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। অপর আক্রান্ত নারী গতকালের আক্রান্ত কাচারিপাড়া মহল্লার স্বর্ণ ব্যবসায়ীর স্ত্রী।

অন্যদিকে বড়াইগ্রামে ৩ বছরের এক শিশু সহ ১৩ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। ওই শিশু উপজেলার দাড়িখৈড় কমিউনিটি ক্লিনিকের স্বাস্থ্যকর্মীর কন্যা। কয়েকদিন আগে তার বাবার শরীরে সংক্রমণ ধরা পড়ে। বাবার সংস্পর্শে থাকায় আক্রান্ত হয় ওই শিশুটি। এছাড়া বড়াইগ্রামের কাছুটিয়া এলাকার এক গৃহিনীর শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।