নিজস্ব প্রতিবেদক: নাটোর সদরে আলী আহমেদ নামে এক ব্যক্তির বাড়ি পুড়ে গেছে। এসময় একটি গরু পুড়ে গেছে। তবে তাৎক্ষণিক ক্ষয়ক্ষতির পরিমাপ করা যায়নি।

শুক্রবার (১৫ মার্চ) দিবাগত রাত সাড়ে তিনটায় উপজেলার ছাতনী ইউনিয়নের চক আমহাটি গ্রামে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

অন্যদিকে শুক্রবার গভীর রাতে সদর উপজেলার ধরাইল গ্রামে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে নাটোর থেকে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

নাটোর ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক আসাদুজ্জামান জানান, শুক্রবার গভীর রাতে রান্নাঘরের চুলার থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহূর্তে আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন আকতার বানু ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা উমর খৈয়াম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে শুকনো খাবার বিতরণ করেছেন।

এদিকে বড়াইগ্রাম উপজেলার বিষ্ণুপুর গ্রামে এক কৃষকের ঘর পুড়ে গেছে। এতে ওই কৃষকের দুটি গরু ও তিনটি ছাগল আগুনে পুড়ে মারা যায়। খবর পেয়ে বনপাড়া ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দূর্ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। বাড়ীর মালিক শাহাদাত আলী দাবি করেছেন অগ্নিকাণ্ডে তার ৬ লাখ টাকার বেশি ক্ষতি হয়েছে।

বনপাড়া ফায়ার স্টেশন ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (১৫ মার্চ) রাত ১১টার দিকে বড়াইগ্রাম উপজেলার বিষ্ণুপুর গ্রামের শাহাদাত আলীর রান্না ঘর থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহুর্তের মধ্যে আগুন চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এতে ইটের তৈরি ২টি রুম ও রান্না ঘর এবং গরুর ঘর সম্পূর্ণ ভস্মিভূত হয় । ঘুমন্ত লোকজন ঘর থেকে বের হতে পারলেও গোয়াল ঘরে থাকা দুটি গরু এবং তিনটি ছাগল আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

বনপাড়া ফায়ার স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম রান্না ঘর থেকে আগুন লাগার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। প্রায় দের ঘন্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে বলেও তিনি জানান।