নিউজ ডেস্ক: নাটোরে আরো ১৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে নাটোর শহরের চকরামপুরে একই পরিবারের ৪ জনসহ নাটোর সদরে ৫জন, নলডাঙ্গা উপজেলায় ৩ জন, লালপুরে ৪ জন, গুরুদাসপুর উপজেলায় ২ জন ও সিংড়া উপজেলায় রয়েছে ১ জন রয়েছেন। এ নিয়ে নাটোর জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৩০ জন।

শনিবার (৪ জুন) এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন নাটোরের সিভিল সার্জন কাজী মিজানুর রহমান। ঢাকার ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব ল্যাবরেটারি মেডিসিন এন্ড রিসার্স থেকে পাঠানো নমুনার রেজাল্টে ১৫ জন করোনায় আক্রান্ত হন বলে জানান তিনি।

জানা গেছে, নাটোর শহরের চকরামপুরে একটি রাষ্ট্রীয় শিল্প প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, তার স্ত্রী ও বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত তার ছেলে-মেয়েসহ পুরো পরিবার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া কান্দিভিটুয়ার ৩৮ বছর বয়সের এক ব্যক্তিও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

এদিকে নলডাঙ্গা থানার ২ দারোগা ও এক গাড়ি চালক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ২ দারোগার মধ্যে একজন সদ্য পুলিশে চাকরি শুরু করেছেন বলে জানা গেছে। এছাড়া সিংড়া বাজার এলাকার এক ব্যবসায়ী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

এদিকে লালপুরে ৪ জনের মধ্যে একজন হাসপাতালের পিয়ন। অন্য ৩ জনের মধ্যে একজন ঈশ্বরদী পরমানু বিদ্যুৎ কেন্দ্রে চাকরি করেন। আর একজন পাওড়া গ্রামের কৃষক। অপরজনের বাড়ি লালপুরের বিরোপাড়া গ্রামে।

এছাড়া গুরুদাসপুরে এক পুলিশ সদস্যের স্ত্রীর শরীরে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি উপজেলার পলশুড়া কান্দিপাড়া গ্রামের বাড়িতেই অবস্থান করছেন। অপরজন ধারাবারিষা এলাকার এক ব্যাংক কর্মকর্তা। তবে তিনি এলাকায় খুব কম সময় থাকেন বলে জানা গেছে।

ঢাকার ন্যাশনাল ল্যাব থেকে পাঠানো তথ্যের বিষয়টি নিশ্চিত করে নাটোর সিভিল সার্জন অফিসের সিনিয়র মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট হাফিজার রহমান জানান, শনিবার ঢাকার ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব ল্যাবরেটারি মেডিসিন এন্ড রিসার্স থেকে মোট ১৬৮ জনের নমুনার রেজাল্ট পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ১৫ জনের রেজাল্ট করোনা পজেটিভ এবং অবশিষ্ট ১১৩ জনের রেজাল্ট নেগেটিভ এসেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে নাটোরের সিভির সার্জন ডাঃ মিজানুর রহমান আক্রান্তদের মধ্যে লালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের একজন অফিস সহায়কসহ ৪ জন, নাটোর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ মার্কেটের মোবাইল ডটকমের একজনসহ সদর উপজেলায় ৪ জন, সদর হাসপাতালের ৪ জন, গুরুদাসপুর উপজেলার ২ জন ও সিংড়া উপজেলায় ১ জন রয়েছেন।

তিনি আরো জানান, রাজশাহীতে নমুনা প্রদানকারী জেলা তথ্য অফিসার মিজানুর রহমানকে নাটোরের তালিকায় সংযুক্ত করা হয়েছে। ইতিমধ্যে নাটোর সদর হাপতালের অর্থোপেডিকস ডাক্তার তৈমুর রহমানসহ সুস্থ হয়েছেন ৬৬ জন। এছাড়া মৃত্যুবরণ করেছেন ১ জন।

এদিকে করোনা আক্রান্তে নাটোর ডবল সেঞ্চুরী অতিক্রম করায় নাটোর জেলা রেড জোনের দ্বারপ্রান্তে চলে আসায় কারো কারো মধ্যে বিরাজ করছে আতঙ্ক, আবার কারো কারো মধ্যে বিষয়টির তেমন প্রভাবই পড়েনি।