নিউজ ডেস্ক: নাটোরে আরো ৩১ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে তিনজন পূনরায় করোনা পরীক্ষায় পজিটিভ হয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) রাতে এই তথ্য জানানো হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ২১৪ জন। তবে কোনো কোনো হিসেবে নাটোরে ২১৭ করোনা আক্রান্ত দেখালেও এর মধ্যে তিনজন অন্য জেলার হওয়ায় তাদের হিসেব সংশ্লিষ্ট জেলায় পাঠানোয় নাটোরের হিসেবে রয়েছে ২১৪ জন। এর মধ্যে ৬৪ জন সুস্থ হয়েছেন এবং ১ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

নাটোর সিভিল সার্জন ডাঃ মিজানুর রহমান জানান, আজ (বৃহস্পতিবার) রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) ল্যাব থেকে নাটোরের ৮০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ৩ জন ফলোআপ সহ ৩১ জনের রেজাল্ট করোনা পজেটিভ এসেছে। এর মধ্যে নাটোর সদরে ২ জন, সিংড়া উপজেলায় ১১ জন, গুরুদাসপুর উপজেলায় ৫ জন, বড়াইগ্রাম উপজেলায় ৬ জন, লালপুর উপজেলায় ৩ জন ও বাগাতিপাড়ায় ১ জন রয়েছেন।

জানা গেছে, নাটোর সদর উপজেলায় দুইজন নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে নাটোর শহরের কানাইখালী এলাকার এক যুবক ও হরিশপুর এলাকার এক ছাত্র রয়েছেন।

এছাড়া সিংড়ার ১১ জন নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে বেশিরভাগই পৌর এলাকায় বসবাস করেন। এছাড়া চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার নাচোল এলাকার এক ওষুধ কোম্পানীর কর্মকর্তা রয়েছেন। যিনি বসবাস করেন সিংড়া হাসপাতাল গেট এলাকায়। এছাড়া দমদমা, হরিপুর, সিংড়া বাজার এলাকায় ৪ রয়েছেন।

অন্যদিকে গুরুদাসপুর উপজেলায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৫ জন। এর মধ্যে ধারাবারিষা এলাকার এক নারী তার বাবার বাড়িতে নমুনা দিয়ে চলে যান সিংড়ায়। বর্তমানে সেখানেই অবস্থান করছেন তিনি। এছাড়া উত্তর নাড়িবাড়ি এলাকায় ১০ বছরের কন্যাসহ আক্রান্ত হয়েছেন বাবা। আর চাঁচকৈড় মধ্যপাড়ায় একজন ও সিঁধুলীতে একজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

এছাড়া বড়াইগ্রাম উপজেলার মালিপাড়ায় একই পরিবারের ৩ জনসহ মোট ৬ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মালিপাড়ার এক কৃষক, তার স্ত্রী ও ১৮ বছরের কন্যা রয়েছেন। এছাড়া একই গ্রামে ১৫ বছর বয়সী এক কিশোর করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। স্বাস্থ্য সহকারীর ছেলে বলে জানা গেছে। আর নগর ইউনিয়নের ধানাইদহ গ্রামে এক ব্যবসায়ী ও চান্দাই ইউনিয়নের ডেওমিন গ্রামের এক ইলেকট্রকি মিস্ত্রী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

অন্যদিকে লালপুরের ৩ জন নতুন করে করোনা হয়েছেন। এর মধ্যে উত্তর লালপুরের এক মুদি দোকানী ও গোপালপুরে সদ্য চাকরি ছেড়ে আসা এক যুবক রয়েছেন।

এছাড়া বাগাতিপাড়া উপজেলায় ১ জন নতুন করে করোনা হয়েছেন। তিনি থানায় গাড়ি চালকের দায়িত্ব পালন করেন বলে জানা গেছে।

নাটোরের সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ফলোআপ রিপোর্ট অর্থাৎ এর আগে যারা করোনা পজিটিভ হয়েছিলেন তাদের মধ্যে যারা ১৪ দিন চিকিৎসায় হোম আইসোলেশনে থাকার পরে পুনরায় করোনা পরীক্ষা জন্য নমুনা দিয়েছিলেন। এই ফলাফলের মধ্যে তাদের তিনজনের ফলাফলও পজিটিভ এসেছে।