নিউজ ডেস্ক: নাটোরে আক্রান্তের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে আরো ৬৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ফলোআপ (আগেই করোনা আক্রান্ত ছিলেন পরে আবার নমুনা পরীক্ষায়ও পজিটিভ) রয়েছেন ৭জন। এ নিয়ে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭২৫ জনে দাঁড়ালো। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন ডা. কাজী মিজানুর রহমান।

নতুন আক্রান্ত ৫৭ জনের মধ্যে নাটোর সদর উপজেলায় ২৯ জন, সিংড়া উপজেলায় ৪জন, বড়াইগ্রাম উপজেলায় ৩জন, বাগাতিপাড়া উপজেলায় ৪জন, লালপুর উপজেলায় ৪জন, গুরুদাসপুর উপজেলায় ১৩জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

সোমবার (১৭ আগস্ট) রাত দশটার দিকে এই দুঃসংবাদ নাটোরে পৌঁছেছে। এর আগে করোনা পরীক্ষার জন্য ঢাকায় এক সাথে ৩৫৬টি নমুনা পাঠানো হয়েছিল। এবারের আক্রান্তের তালিকায় নাটোরের ৭টি উপজেলাই রয়েছে। বরাবরের মত তালিকার শীর্ষস্থানে রয়েছে সদর উপজেলা। এখানে আক্রান্ত ৩২ জন। যার মধ্যে পূর্বের আক্রান্ত রয়েছেন ৪ জন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে সিভিল সার্জন ডা. কাজী মিজানুর রহমান জানান, আজ (সোমবার) রাত দশটার দিকে ৭ জন ফলোআপসহ ৬৪ জন করোনা আক্রান্তের ফলাফল নাটোরে এসে পৌঁছেছে। এনিয়ে জেলায় মোট ৭২৫ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলেন। তবে নাটোর জেলায় এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত রোগী সুস্থ হয়েছেন অন্তত ৩৫৮ জন। আর মৃত্যুবরণ করেছেন ২ ব্যক্তি।

সদরের আক্রান্তের নতুন তালিকায় কানাইখালী এলাকার সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তা, মল্লিকহাটী এলাকার সাবেক পুলিশ সদস্য, নিচাবাজারের মারোয়ারী ব্যবসায়ী, ২ র‌্যাব সদস্য ও সদর পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের এক কর্মী। এছাড়া জেলা গোয়েন্দা শাখার পরিদর্শক মোহম্মদ ইব্রাহীম, সিভিল সার্জন অফিসের ২ স্বাস্থ্যকর্মীর পূনরায় পজিটিভ এসেছে।

বড়াইগ্রামের জালোরার এক আয়ুর্বেদীক চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া ইকরি এলাকার এক কম্পিউটার দোকানী রয়েছেন তালিকায়।

সিংড়া উপজেলার সাঁঐল কমিউনিটি ক্লিনিকের এক স্বাস্থ্যকর্মী, কোর্ট মাঠ এলাকার একজন ও সাতপুকুরিয়া এলাকার এক কৃষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া লালপুরের ৩ কৃষক ও পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের এক কর্মীর শরীরে পাওয়া গেছে করোনার উপস্থিতি।

অন্যদিকে বাগাতিপাড়া উপজেলা নির্বাচন অফিসের এক কর্মচারি, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক স্বাস্থ্য সহকারী, মালঞ্চি বাজারের এক ব্যবসায়ী ও পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের এক কর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

এছাড়া নলডাঙ্গা উপজেলার ঠিকানায় ২ জনের আক্রান্ত হওয়ার তথ্য পাওয়া গেছে। তবে জেলার গুরুদাসপুরে আজ দ্বিতীয় সবোর্চ্চ আক্রান্ত রয়েছেন। এই উপজেলায় মোট আক্রান্ত রয়েছে ১৩ জন।

সুস্থ ২৭৬ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় ১২১ জন, সিংড়া উপজেলায় ৬৭ জন, লালপুর উপজেলায় ৩৬ জন, বাগাতিপাড়া উপজেলায় ২৪ জন, নলডাঙ্গা উপজেলায় ১১ জন, বড়াইগ্রাম উপজেলায় ১০ জন ও গুরুদাসপুর উপজেলায় ৭ জন রয়েছেন।

কৃতজ্ঞতা: আরিফুল ইসলাম