নিউজ ডেস্ক: নাটোরে নতুন করে আরো ৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এনিয়ে জেলায় মোট ১৩৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে সুস্থ ৫৪ জন হয়েছেন।

শনিবার (২০ জুন) সন্ধ্যা নাটোর সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, করোনা আক্রান্তদের মধ্যে ৩ জন সদর উপজেলার বাসিন্দা রয়েছেন, এছাড়া ২ জন গুরুদাসপুর উপজেলার, ২ জন সিংড়া উপজেলার ও ১ জন বড়াইগ্রামের বাসিন্দা আছেন। আক্রান্তদের মধ্যে নাটোর সদর হাসপাতালের এক নার্স রয়েছেন। তার বাড়ি শহরের হুগোলবাড়িয়া এলাকায়। এছাড়া ইসলামী ব্যাংক নাটোর শাখার একজন কর্মকর্তা রয়েছেন। তিনি শহরের বলাড়িপাড়া মহল্লায় থাকেন।

এদিকে সিংড়ায় আক্রান্ত দু’জনও পৌর এলাকার বাসিন্দা। একজন সোলাকুড়া এলাকার ৬৬ বছর বয়সী ধান-চাল ব্যবসায়ী। অপরজন শৈলমারি এলাকার বাসিন্দা। তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলার পারটেক্স মিলের কর্মচারি। সেখান থেকে আক্রান্ত অবস্থায় তাকে নিজ এলাকায় পঠিয়ে দেয় কর্তৃপক্ষ। এলাকায় ফিরে নমুনা দেয়ার পর তার শরীরে সংক্রমণ ধরা পড়লো।

এছাড়া গুরুদাসপুর উপজেলায় আক্রান্ত ২ জনই গুরুদাসপুর পৌর এলাকার বাসিন্দা। এর মধ্যে একজন নারী উত্তর নারিবাড়ি মহল্লায় থাকেন।অপরজনের বাড়ি কাচাড়িপাড়া এলাকায়।তিনি পেশায় একজন স্বর্ন ব্যবসায়ী।

অন্যদিকে বড়াইগ্রামে আজকের আক্রান্ত ব্যক্তিটিও চান্দাই ইনিয়নের বাসিন্দা। তিনি ওই ইউনিয়নের রাজেন্দ্রপুর গ্রামের ৪৬ বছর বয়সী একজন কৃষক।

নাটোরের সিভিল সার্জন ডাঃ মিজানুর রহমান জানান, রামেক র‌্যাব থেকে ৮ জন আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এনিয়ে জেলায় মোট আক্রান্ত ১৩৫ জন। এরমধ্যে ৫৪ জন সুস্থ হয়েছেন। মৃত্যুবরণ করেছেন ১ জন। নতুন ব্যক্তিদের হোম আইসলেশানের বিষয়টি নিশ্চিত করাসহ বাড়ি লক ডাউন করা এবং আক্রান্তদের সংস্পর্শে যারা এসেছিলেন তাদের সকলের নমুনা সংগ্রহ করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের (রামেক) ভাইরোলজি বিভাগের প্রধান ও ল্যাব ইনচার্জ প্রফেসর ডা. সাবেরা গুলনাহার জানান, শনিবার রামেক ল্যাবে ১২৫ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এর মধ্যে ১৮ জনের নমুনায় করোনা পজেটিভ এসেছে। এদের ৮ জন নাটোরের, ৮ জন রাজশাহীর ও ২ জন পাবনার রয়েছেন।