নিউজ ডেস্ক: করোনার নতুন ‌‘হট স্পট’ নাটোরে আবারো করোনা আক্রান্তের সংখ্যা রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। পুলিশ, সাংবাদিকসহ একদিনে ৬২ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তবে এর মধ্যে ফলোআপ থাকতে পারে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন ডা. কাজী মিজানুর রহমান।

শুক্রবার (৭ আগস্ট) রাতে ঢাকা থেকে এই দুঃসংবাদ নাটোরে এসে পৌঁছেছে। এর আগে গত বুধবার রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ল্যাবরেটরিতে পাঠানো ৩৬৩ টি নমুনা ফেরত পাঠানোর পরে তা পাঠানো হয় ঢাকায়। সেখান থেকে এই ফলাফল এসেছে।

নাটোর সিভিল সার্জন অফিস সূত্র জানায়, রাতে ঢাকা থেকে ৬২ জনের পজেটিভ ফলাফল এসেছে। এদের মধ্যে আক্রান্তের শীর্ষে রয়েছে সদর উপজেলা। শনাক্ত হয়েছে মোট ২৭ জন। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আক্রান্ত লালপুরে ১২ জন, গুরুদাসপুরে ও বড়াইগ্রামে ৯ জন করে এবং সিংড়ার ৪ জন শনাক্ত হয়েছেন। এনিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬০৫ জন। জেলায় সুস্থ হয়েছেন অন্তত ২৫২ জন। এছাড়া নাটোরের ৭৩৫টি নমুনা পরীক্ষা স্থগিত রয়েছে।

আক্রান্তরা হলেন, নাটোর সদর হাসপাতালের সমাজ কল্যাণ অফিসার কান্দিভিটায় বসবাসরত হ্যাপী, একই এলাকার জুলফিকার আলী, কাপুড়িয়া পট্টির সাধনা বসাক, গার্মেন্টস্ ব্যবসায়ী বিশ্বজিৎ সরকার, পূর্নিমা রানী, নীলিমা বসাক, রানী বসাক, জোস্না কর্মকার, মোমেন কৃষ্ণ বসাক, কান্দিভিটা এলাকার আবিদ হাসান, আলাইপুর এলাকার ফেরদৌসী খাতুন, কানাইখালী এলাকার মশিউর রহমান, ফৌজদারীপাড়া এলাকার প্রবাল মিত্র, উত্তর চৌকিরপাড় এলাকার নাজমুল হোসাইন, কান্দিভিটা এলাকার আবিদ জামান, নাটোর সদর কোর্টে কর্মরত জেরিন, উপর বাজার এলাকার স্বাস্থ্য পরিদর্শক মশিউর রহমান, বেসরকারি কোম্পানীর কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেন, নাটোর সদর হাসপাতালের স্টাফ দরাপপুর গ্রামের মোকাদ্দেস আলী হীরা, ট্রাফিক পুলিশ আব্দুল করিম, ঝাউতলা ফুলবাগান এলাকার ফরিদা ইয়াসমিন, হাজরা নাটোরের আব্দুর রাজ্জাক, উত্তর পটুয়াপাড়া এলাকার কৃষি অফিসের স্টাফ চৌধুরী, নাটোর সদর হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর্মী জান্নাতুল ফেরদৌস, আলাইপুর এলাকার নাসিমা খাতুন ও চৌকিরপাড় এলাকার সেতু জমাদার।

এছাড়া লালপুর উপজেলার দ্বিরেন্দ্রনাথ, ইকবাল মহসিন আলী ওয়ালিয়া এলাকার আমিনুর রফিকুজ্জামান, মিজানুর রহমানসহ ১২জন।

অন্যদিকে বড়াইগ্রামে ইকরী গ্রামের সাংবাদিক জাহিদ হাসান, বড়াইগ্রাম স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নার্স আফরোজা বুলবুল, রাজাপুরের চাকুরীজীবী আবুল কাশেম, তিরোইল গ্রামের ব্যবসায়ী কাজিম উদ্দিন, কালিকাপুর এলাকার ডাঃ ওয়ালউল ইসলাম, একই এলাকার হামিদা ইসলাম ও হুমাইয়া ইসলাম, বড়াইগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসের মাহমুদা বেগম ও মহিষভাঙ্গা এলাকার শরিফুল ইসলামসহ ৯ জন।

এছাড়া সিংড়ার পৌর এলাকার গোডাউন পাড়ার মোকাব্বির ইসলাম, সিংড়া থানার এসআই শিশিরসহ ৪ জন।

অন্যদিকে বাগাতিাড়া থানার এসআই আকরাম, পুলিশ কনস্টেবল আমির হাসান, সাহিদুল, কাজল আলী, গোলাম মোস্তফা, মতিউর রহমান, ইমরান সরকার, রাকিবুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর আলম, সুজা খন্দকার, অসিম আলী, বরবিনী মন্ডল, জাল্লাল হায়দার, হাসান আলী, খিয়ান উদ্দিন, জসিম, ইকবাল, কোলাবাড়িয়া গ্রামের সাইদুর রহমান, মিশ্রীপাড়ার রোকসান আলী, বাগাতিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্যকর্মী বেলাল হোসেন, সমবায় অফিসের সানি আহমেদ, ইসলামী ব্যাংকের সোনালী আকতার, মালঞ্চি বাজারের ৪ বছরের শিশু দরপন গাউজিয়া, বাগাতিপাড়া কৃষি ব্যাংকের স্টাফ জয়নাল আবেদীন।

এদিকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল (রামেক) কর্তৃপক্ষ নাটোর থেকে করোনা পরীক্ষার জন্য প্রেরিত নমুনা গ্রহণ করছে না। তারা নাটোর থেকে পাঠানো নমুনা পরীক্ষা করতে অস্বীকৃতি জানিয়ে ফিরিয়ে দিয়েছে। এছাড়া নাটোর সিভিল সার্জন অফিসের কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান অসুস্থতা বোধ করায় বিস্তারিত তথ্য বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে তথ্য সংগ্রহের জন্য অনুরোধ হয়েছে।