নিউজ ডেস্ক: নাটোরে কঠোর গোপনীয়তায় বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী অটুট থাকার শ্লোগানে বাংলাদেশ সচেতন নাগরিক কমিটি নামে একটি সংগঠনের কমিটি গঠন করা হয়েছে। উপস্থিত সকলের মতামতের ভিত্তিতে নবগঠিত কমিটি ঘোষণা করেন অ্যাডভোকেট খগেন্দ্রনাথ রায়।

বুধবার (১ জুলাই) এ উপলক্ষে নাটোর শহরের কাপুড়িয়া পট্টি এলাকার পার্টি প্যালেসে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় চিত্তরঞ্জন সাহার সভাপতিত্বে সভায় বক্তৃতা করেন নবীউর রহমান পিপলু, আব্দুল মালেক শেখ,অধ্যক্ষ মকছেদ আলী, অধ্যক্ষ আব্দুর রাজ্জাক, প্রবীণ শিক্ষক সত্যেন্দ্রনাথ, মোহম্মদ নাসিহ, দৈনিক প্রান্তজন পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক সাজেদুর রহমান সেলিম, হায়দার আলী, অ্যাডভোকেট খগেন্দ্র নাথ রায়, অ্যাডভোকেট মানসী, সুকুমার সরকার, আব্দুর রাজ্জাক, আলতাফ হোসেন, জাহিদুর রহমান প্রমুখ।

সভায় হিন্দু বৌদ্ধ খৃষ্টান ঐক্য পরিষদ নেতা চিত্তরঞ্জন সাহাকে আহ্বায়ক, ইউনাইটেড প্রেসক্লাবের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নবীউর রহমান পিপলুকে যুগ্ম আহ্বায়ক এবং জেলা আইনজীবি সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল মালেক শেখকে সদস্য সচিব করে ২১ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়।

এছাড়া নাটোর-২ (সদর-নলডাঙ্গা) আসনের সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শিমুল, এ্যাড. সিরাজুল ইসলাম, অধ্যক্ষ আব্দুর রাজ্জাক, সাংবাদিক রনেন রায় প্রমুখকে কমিটির উপদেষ্টা করা হয়।

এদিকে কঠোর গোপনীয়তায় এমন একটি সংগঠনের কমিটি গঠন নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। কেউ কেউ বিষয়টি জানতে না পাওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এর মধ্যে উপদেষ্টা পদ পাওয়া একজন তার পদ ছাড়ার ইঙ্গিতও দিয়েছেন।

এছাড়া একজন আইনজীবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টির তদন্ত দাবি করেছেন। অন্য আরেক আইনজীবি পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠনের সময় বিষয়টি অবশ্যই ব্যাপকভাবে জানানোর অনুরোধ করেছেন।

অন্যদিকে বিষয়টি নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে উঠেছে ঝড়। ব্যাপারটি নাড়া দিয়েছে গণমাধ্যমকর্মীদের মধ্যেও। এমন একটি কমিটি গঠনে সংবাদ সংগ্রহের জন্য আমন্ত্রণ পাননি বলেও জানান স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরা।

এদিকে নাম নিয়ে নানারকম গুঞ্জন থাকলেও কমিটির অন্যতম সদস্য নাটোর পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর জাহিদুর রহমান জানান, সামাজিক ও প্রাকৃতিক নানা সংকটে মানুষের পাশে থাকা ও সচেতন করা এই কমিটির মূল উদ্দেশ্য। তবে তিনি দাবি করেন, টিআইবি বা সচেতন নাগরিক কমিটির কোনো প্রতিদ্বন্দী সংগঠন নয় নবগঠিত বাংলাদেশ সচেতন নাগরিক কমিটি।