নিউজ ডেস্ক: করোনা উপসর্গ নিয়ে নাটোরে ঢাকা ফেরত বিধান সরকার (৪৭) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন নাটোর সদর উপজেরা নির্বাহী অফিসার জাহাঙ্গীর আলম।

বুধবার (১ জুলাই) সকালে নাটোর সদর উপজেলার জংলী গ্রামে তার মামা কার্ত্তিক সরকারের বাড়িতে মৃত্যু হয়। মৃত বিধান সরকার (৪৭) নওগাঁ জেলার রানীনগর উপজেলার দুলাল সরকারের ছেলে। তিনি করোনা উপসর্গ নিয়ে মঙ্গলবার রাতে জংলী গ্রামে তার মামা কার্ত্তিক সরকারের বাড়িতে এসেছিলেন। বিধান সরকার ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করতেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার রাত ৮টায় বিধান সরকার জংলী এলাকার প্রয়াত মামা কার্ত্তিক সরকারের বাড়িতে আসেন। রাতে খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। বুধবার সকালে ঘুম থেকে না উঠলে ডাকাডাকির এক পর্যায়ে দরজা ভেঙ্গে দেখা যায় তিনি তিনি মারা গেেছন। বিধান করোনা আক্রান্ত মনে করে কেউ তার সৎকারে এগিয়ে আসেনি। এমনকি বিধান সরকারের স্বজনরা নওগাঁয় গ্রামের বাড়িতে লাশ নিতে চাননি। সংবাদ পেয়ে বুধবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহায়তায় জংলী শ্মশানে বিধান সরকারের মৃতদেহ দাহ করা হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, রাজশাহী থেকে স্বেচ্ছাসেবক এনে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে সাথে নিয়ে মৃতের সৎকার করা হয়েছে। এছাড়া করোনা পরীক্ষার জন্য মৃত ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ ও কার্ত্তিক সরকারের বাড়ির লোকজনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত সোমবার তেবাড়িয়া আরমান মোড়ে করোনা উপসর্গে লোকমান হোসেন নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে।