নিজস্ব প্রতিবেদক: নাটোরে সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট নিওন হোসেনকে কুপিয়ে জখম করেছে সজিব নামের এক যুবক। হামলাকারী সজিব এলাকার আলোচিত ভ্যানচালক হত্যা মামলার আসামি। প্রত্যক্ষদর্শী রাজীব জানান, নিয়নের ঘাড়, মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম দেখা গেছে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

বুধবার (৬ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শহরতলীর দিঘাপতিয়া বাজারে এই হামলার ঘটনা ঘটে। আহত নিওনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিওন ভাতুরিয়া গ্রামের আব্দুল আজিজের ছেলে। হামলাকারী সজিব একই গ্রামের জালাল উদ্দিনের ছেলে ও ওই গ্রামেরই ভ্যানচালক সাহাবুদ্দিন হত্যা মামলার আসামি।

নিওনের ভাই সজল হোসেন নান্টু ও স্থানীয়রা জানায়, বুধবার সকালে নিওন বাইকযোগে তার কর্মক্ষেত্র নাটোর জজ কোর্টে যাচ্ছিল। পথে দিঘাপতিয়া বাজারের পার্শ্বে রাস্তায় তার গতিরোধ করে সজিব। এ সময় তার হাতে থাকা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে এবং নিওনের মোটরসাইকেলটি নিয়ে পালিয়ে যায়। নিওনের চিৎকার শুনে এলাকাবাসী তাকে উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

অ্যাডভোকেট নিওনের বাবা আব্দুল আজিজ জানান, গুরুতর আহত অবস্থায় প্রথমে নাটোর সদর হাসপাতাল এবং পরে অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নাটোর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) ফরিদুল ইসলাম জানান, নিওন হোসেনের সঙ্গে একই এলাকার সজীব হোসেনের দীর্ঘদিন ধরে একটি হত্যা মামলা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে তাদের মধ্যে আগেও কয়েকবার কথা-কাটাকাটির ঘটনা ঘটেছে। আজ সকালে নিওন হোসেন বাড়ি থেকে বের হন তার কর্মস্থল আদালতে যাওয়ার জন্য। এ সময় পথে দিঘাপতিয়া বাজারের পার্শ্বরাস্তায় নিওন হোসেনের গতিরোধ করে ধারাল অস্ত্র দিয়ে হামলা চালায় সজীব ও তার সহযোগীরা। ঘটনাটি স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে এগিয়ে গেলে তারা নিওনের মোটরসাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

এ ব্যাপারে নাটোর সদর থানার ওসি (তদন্ত) ফরিদুল ইসলাম জানান, অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।