নিজস্ব প্রতিবেদক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নাটোরের ৪টি আসনেই জয়ী হয়েছে আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা। তারা হলেন, নাটোর-১ আসনে শহিদুল ইসলাম বকুল, নাটোর-২ আসনে শফিকুল ইসলাম শিমুল, নাটোর-৩ আসনে জুনাইদ আহমেদ পলক ও নাটোর-৪ আসনে আব্দুল কুদ্দুস।

অন্যদিকে আ্ওয়ামী লীগের বিজয়ী প্রার্থী ছাড়া বিএনপি, জাতীয় পার্টি, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, ও বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির সকল প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। নাটোর জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আব্দুর রহিম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নির্বাচন কমিশন অফিস সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচন কমিশন আইন অনুযায়ী প্রদত্ত ভোটের এক-অষ্টমাংশ না পেলে সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক দলের প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়ার নিয়ম আছে। সেই হিসেবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে নাটোরের ৪টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতায় অংশ নিয়ে ১৯ প্রার্থীর মধ্যে জামানত হারালেন ৬টি রাজনৈতিক দলের ১৫ প্রার্থী। নিচে ৪ টি আসনের তাদের পরিসংখ্যান দেওয়া হলো:

এর মধ্যে নাটোর-১ (লালপুর-বাগাতিপাড়া) আসনে প্রদত্ত মোট ভোটের সংখ্যা ২ লাখ ৬৭ হাজার ৯৬৪। এখানে এক-অষ্টমাংশ ভোট অর্থ্যাৎ ৩৩ হাজার ৪৯৬ ভোট না পাওয়ায় ৫ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। তারা হলেন বিএনপি প্রার্থী কামরুন্নাহার শিরিন (১৫৩৩৮), বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির আনসার আলী দুলাল (৬১৯), জাতীয় পার্টির আবু তালহা (১৪৩৯), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের খালেকুজ্জামান (১১৮৯) ও বাংলাদেশ মুসলিম লীগ (৭৯৬)। তবে নির্বাচনের আগে নাটোর-১ আসনে জাপা প্রার্থী আবু তালহা নৌকার প্রার্থীদের সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে আসেন।

এছাড়া নাটোর-২ (সদর-নলডাঙ্গা) আসনে প্রদত্ত মোট ভোটের সংখ্যা ২ লাখ ৮১ হাজার ৩৪১। এখানে এক-অষ্টমাংশ ভোট অর্থ্যাৎ ৩৫ হাজার ১৬৮ ভোট না পাওয়ায় ৩ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। তারা হলেন বিএনপি প্রার্থী সাবিনা ইয়াসমিন (১৩১৯৭), জাতীয় পার্টির মজিবর রহমান সেন্টু (২০৭৭) ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আজিজার রহমান খান আমেল চৌধুরী (১৭৬০)

অন্যদিকে নাটোর-৩ (সিংড়া) আসনে প্রদত্ত মোট ভোটের সংখ্যা ২ লাখ ৪২ হাজার ৯০৪। এখানে এক-অষ্টমাংশ ভোট অর্থ্যাৎ ৩০ হাজার ৩৬৪ ভোট না পাওয়ায় ৪ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। তারা হলেন বিএনপি প্রার্থী দাউদার মাহমুদ (৮৮৪১), জাতীয় পার্টির (জেপি) আনিসুর রহমান (৩৬৫), বিকল্প ধারার মঞ্জুরুল আলম হাসু (৩১৪) ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মোস্তফা ওয়ালীউল্লাহ (১৭৬০)। নাটোর-৩ আসনে জেপি প্রার্থী আনিসুর রহমান ও বিকল্পধারার মঞ্জুরুল আলম হাসু নৌকার প্রার্থীদের সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে আসেন।

এছাড়া নাটোর-৪ (বড়াইগ্রাম-গুরুদাসপুর) আসনে প্রদত্ত মোট ভোটের সংখ্যা ৩ লাখ ২ হাজার ৫৪১। এখানে এক-অষ্টমাংশ ভোট অর্থ্যাৎ ৩৭ হাজার ১১৮ ভোট না পাওয়ায় ৩ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। তারা হলেন জাতীয় পার্টির আলাউদ্দিন মৃধা (৭৩০৪), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বদরুল আমীন (৬৩৭১) ও বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির হারুনুর রশীদ।

নাটোর জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আব্দুর রহিম জানান, জামানত অক্ষুন্ন রাখার নির্দিষ্ট ভোট না পাওয়ায় ৪ আসনের ১৫ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।