নিউজ ডেস্ক: দেশের ঐতিহ্য ধারণ করে পুলিশ পরিবারের সদস্যদের হাতে তৈরিকৃত রকমারী হস্তশিল্প পণ্যের পসরা দিয়ে সাজানো পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতির বিক্রয় কেন্দ্রের বিপণন কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

শনিবার (২১ নভেম্বর) রাতে নাটোর থানা সংলগ্ন পুলিশ প্লাজায় এ কেন্দ্রের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন সমিতির সভানেত্রী সুমনা সাহা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারেক জুবায়ের, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) মীর আসাদুজ্জামান, নাটোর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মোহসীন প্রমুখ। খবর বাসস

পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি পরিচালিত হস্তশিল্প বিক্রয় কেন্দ্রে সেলাই, পুঁথি, পাট ও কাসা শিল্পের প্রায় অর্ধশত দৃষ্টিনন্দন পণ্য স্থান পেয়েছে। এরমধ্যে রয়েছে তাতের শাড়ি, নকশী কাঁথার চাদর, থ্রিপিস, পাঞ্জাবী, শাল, হাতপাখা, হাতের কাজে কাপড়ে তৈরী টিস্যুবক্স, আয়রন, মশারী, তবলা ও কুশন কভার, পাটের ব্যাগ, পুঁথির ব্যাগ ও বিভিন্ন শো-পিস, কাসার প্লেট, গ্লাস, চামচ ও কাঁটা চামচা।

জানা গেছে, সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত শুক্রবারসহ সপ্তাহের সাতদিন এ বিপণন কেন্দ্র খোলা থাকবে। উদ্বোধনের পরপরই রাতেই ৩২ হাজার টাকার পণ্য বিপণন হয়েছে বলে জানান বিক্রয়কর্মী কনস্টেবল মোঃ শামীম রেজা। এছাড়া বিপণন কেন্দ্রের সাথেই অবস্থিত পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি নাটোর জেলা কমিটির কার্যালয় থেকে সমিতির সদস্যবৃন্দ বিপণন কার্যক্রম মনিটরিং করবেন।

পুলিশ নারী কল্যান সমিতি নাটোর জেলা কমিটির সভানেত্রী সুমনা সাহা বলেন, বিক্রয় কেন্দ্রের পণ্যগুলো পুলিশ পরিবারের সদস্যরা নিজেদের হাতে তৈরি করেছেন। বিক্রয়লব্ধ মুনাফার একটা অংশ যাবে সমাজসেবামূলক কর্মকাণ্ডে। ভবিষ্যতে বিক্রয় কেন্দ্রের পরিধি বাড়াতে প্রয়োজনে নাটোরের গ্রামীণ জনপদে অভিজ্ঞ হস্তশিল্পিদের নিয়োজিত করা হবে এবং এর মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা বলেন, নাটোরে বিভিন্ন অনুষ্ঠান-আয়োজনে সাজানোর কাজে বা উপহার হিসেবে ফুলের ডালি বা তোড়ার চাহিদা বিবেচনা করে অচিরেই এ বিক্রয় কেন্দ্রের সম্প্রসারিত অংশে কাঁচা ফুলের বিপণন কার্যক্রম শুরুর পরিকল্পনা করা হয়েছে।