নিজস্ব প্রতিবেদক: নাটোর সদর উপজেলার যুবলীগ নেতা জামিল হোসেন ওরফে মিলনকে (৩৮) অপহরণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দলীয় নেতা-কর্মীরা। মিলন নাটোর জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পদপ্রার্থী ও সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী। তবে বিষয়টি অস্বীকার করে পুলিশ ও র‌্যাব দাবি করেছে, তারা কিছুই জানেন না।

বৃহস্পতিবার (৩১ জানুয়ারি) রাত পৌনে ১২টার দিকে শহরের হাফরাস্তা তালতলা এলাকার মিলনের বাড়ির পাশের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে সাদা পোশাকে কিছু লোক তাকে মাইক্রোবাসে করে তুলে নিয়ে গেছে। নিখোঁজ মিলনের বাবা এমদাদুল হক মিয়াজি জানান, র‌্যাব পরিচয়ে তার ছেলেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তিনি তার সন্তানের সন্ধান চান। মিলনের বিরুদ্ধে কোনো মামলা নেই দাবি করেন এমদাদুল হক। তবে বিষয়টি অস্বীকার করে র‌্যাব-৫ এর সিও মাহবুবুর রহমান জানান, মিলনকে র‌্যাব আটক করেনি।

এদিকে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোয়ন প্রত্যাশী যুবলীগ নেতা জামিল হোসেন মিলনকে দ্রুত খুঁজে দিতে শুক্রবার দুপুরে নাটোর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন মিলনের পিতা ইউপি সদস্য এমদাদুল হক।তিনি জানান, তার ছেলে গত কয়েকদিন আগে উপজেলা নির্বাচনের দলীয় ভোটাভুটিতে তৃতীয় হয়। সে নির্বাচনের লক্ষ্য নিয়ে গণসংযোগ করে আসছিল।

এমদাদুল হক আরো বলেন, ‘আমরা পারিবারিকভাবে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত দীর্ঘদিন ধরে। আমার ছেলেকে তুলে নিয়ে কোথায় যাওয়া হয়েছে, তা সবাই জানতে চায়।’

মিলনের নামে দায়ের হওয়া মামলা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে এনামুল হক সাংবাদিকদের জানান, ছেলের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলাগুলো রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। ৪টি মামলার মধ্যে ৩টি থেকেই মিলন অব্যাহতি পেয়েছে। শীঘ্রই শেষ মামলাতেও তার অব্যাহতির কথা ছিল।

এই সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি আব্দুল মান্নান, ছাতনী ৯ নং ওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশিং সভাপতি ও আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালাম গাজী, ইউপি যুবলীগ সহ-সভাপতি নাসির উদ্দীন, ৭নং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি শাহ আলম প্রমুখ।

অন্যদিকে মিলনকে তুলে নেওয়ার প্রতিবাদ ও তার সন্ধানের দাবিতে তালতলা হাফরাস্তা এলাকায় থেকে তার কর্মী ও সমর্থকরা শুক্রবার সকালে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিল নিয়ে তারা প্রথমে কানাইখালী পুরাতন বাসট্যান্ডে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত সড়ক অবরোধ করে। পরে মিলনের বিক্ষুদ্ধ কর্মী সমর্থকরা সকাল ১১টা থেকে ১২ টা হরিশপুর বাইপাস সড়ক অবরোধ করে রাখে।

এ ব্যাপারে নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সৈয়দ মোর্তুজা বাবলু বলেন, ‘আমরা নাটোর থানার ওসিসহ পুলিশ সুপারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তারা আমাদের মিলনের সন্ধান দিতে পারেনি।’

তিনি জানান, মিলন যদি কোনো অপরাধ করে থাকে তাহলে তাকে আইনের আওতায় আনা হোক। মিলনের দ্রুত সন্ধানের জন্য স্থানীয় প্রশাসনের কাছে দাবি জানান তিনি।

এ ব্যাপারে নাটোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জালাল উদ্দিন জানান, এই ঘটনায় শুক্রবার দুপুরে নাটোর সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন মিলনের বাবা এমদাদুল হক মিয়াজি।পুলিশ মিলনের সন্ধানের চেষ্টা করছেন বলে জানান ওসি জালাল উদ্দিন।

নাটোর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল হাসনাত জানান, বিক্ষুদ্ধ কর্মীদের শান্ত করে যান চলাচল স্বাভাবিক করা হয়েছে। নিখোঁজ মিলনের সন্ধানে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করা হচ্ছে।

নাটোর সদর থানা সূত্রে জানা যায়, মিলনের বিরুদ্ধে এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে জমি-জলাশয় দখল করার অভিযোগ রয়েছে। কয়েক মাস আগে র‌্যাব লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তার কয়েকজন সহযোগীকে আটক করে থানায় সোপর্দ করেছিল।