নিউজ ডেস্ক: নাটোরে সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য (নাটোর-নওগাঁ) রত্না আহমেদের বাসায় গ্রীল কেটে চুরির ঘটনা ঘটেছে। তবে তিনি ঢাকায় অবস্থান করায় কি কি চুরি হয়েছে সে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে একজন সংসদ সদস্যের বাড়িতে গ্রীল কেটে চুরির বিষয়টি নাটোরবাসীকে ভাবিয়ে তুলেছে।

শনিবার (২৭ জুন) দিবাগত রাতের কোন এক সময় নাটোর শহরের প্রাণকেন্দ্র কানাইখালী পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এই চুরির ঘটনা ঘটেছে। তবে সকালেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশের কর্মকর্তারা। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল হাসনাত।

পুলিশ ও বাড়ির পরিচারিক নাজমা বেগম সূত্রে জানা যায়, সংসদ সদস্য রত্না আহমেদ ঢাকায় অবস্থান করার তার বাসায় কেউ ছিল না। বাড়ির কাজের লোকজন গতকাল (শনিবার) সন্ধ্যায় কাজ শেষ করে বাড়ি চলে যায়। আজ (রোববার) সকালে তারা কাজে এসে বাড়ির দারোয়ানের রুমে জিনিসপত্র এলোমেলো পড়ে থাকতে দেখে। এরপর দোতলায় গিয়ে এমপির রুমে গ্রীল কাটা দেখে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এ সময় রুমের কয়েকটি ওয়্যারড্রপের ড্রয়ার খোলা দেয়া গেছে। একটি বটি ও রড দিয়ে আলমারিসহ বিভিন্ন ড্রয়ার ভাঙ্গার চেষ্টা করেছে চোর। এদিকে ঘটনার পর পরই ঘটনাস্থলে যান পুলিশের কর্মকর্তারা।

বিষয়টি নিশ্চিত করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল হাসনাত বলেন, সিসি ক্যামেরা দেখে আসামিদের গ্রেফতার ও কারণ উদঘাটন করা হবে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা জানান, সিসি টিভি ফুটেজ দেখে চোরকে শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। সিসি ক্যামেরার ফুটেজে চোরকে বাড়ির পশ্চিম পাশের হকার্স মার্কেটের ছাদ দিয়ে গ্রীল কেটে বের হয়ে যেতে দেখা গেছে। তবে এমপি মহোদয় বলতে পারবেন বাড়িতে এমন কিছু ছিল কিনা যা খোয়া গেছে।

এ ব্যাপারে রত্না আহমেদ এমপি বলেন, আমার স্বামী মারা যাওয়ার পর ১৫/১৬ বছর হয়ে গেলেও আজ পর্যন্ত এমন কোন ঘটনা ঘটেনি। আর আশেপাশের সবাই জানে এটা একটা এমপির বাড়ি। বাড়ির চারপাশে সিসি ক্যামেরার কথাও কারও অজানা নয়। আর আমার বাড়িতে এমন কোন ধন সম্পদ টাকা পয়সা নাই যে চুরি বা ডাকাতির উদ্দেশ্যে বাড়িতে কেউ অনুপ্রবেশ করবে।

তিনি আরো জানান, সংসদ চলায় তিনি ঢাকায় অবস্থান করছেন। তিনি ফিরে বিস্তারিত বলতে পারবেন। তবে বাড়িতে তার কিছু নগদ টাকা, স্বর্নালংকার ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছিল। এছাড়া আরেকটি ঘরে পাসপোর্টসহ জরুরী কিছু কাগজপত্র ছিল বলে জানান তিনি।

রত্না আহমেদ এমপি বলেন, আমার সততা, রাজনৈতিক সফলতা এবং মানুষের মন জয় করে এগিয়ে যাওয়াকে যারা মেনে নিতে পারছেনা তারা আমার মনোবলকে ভেঙ্গে দিতে এবং আমি যেন ঘরমুখো হয়ে থাকি, আমার প্রতি সরকারের অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে ব্যর্থ হই সেইসব হীন উদ্দেশ্যে আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এই ঘটনা কোন একটি চক্রান্তকারী মহল ঘটিয়েছে বলে আমার ধারণা।