নিজস্ব প্রতিবেদক: পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার বলেছেন, নারদ নদের স্বাভাবিক প্রবাহ নিশ্চিত করার পাশাপাশি শহরের মধ্যে এই নদীর উভয় পাশে ওয়াকওয়ে নির্মাণসহ সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ শুরু করা হবে।

রোববার (০১ ডিসেম্বর) দুপুরে নাটোরের জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে চলনবিল এলাকার প্রাকৃতিক জলাধার পুনরুদ্ধার এবং পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রকল্পসমূহের অগ্রগতি সংক্রান্ত সভায় প্রধান অতিথির হিসেবে বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার বলেন, চলনবিলের নদী ও খাল সংষ্কার সহ এক হাজার টাকার কোটি টাকার ও বেশী ব্যয়ে বড়াল -নারদ ও মুসা খা নদী খননে প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে । কিনি বলেন দেশের বৃহত্তম বিল চলনবিলের কোথায় কি সমস্যা রয়েছে সেগুলো চিহ্নিত করে সমাধানের জন্যই আপনাদের সাথে আজকের এই মত বিনিময় সভার আয়োজন করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের নদ নদী সংষ্কার করে পানি সংরক্ষনের জন্য রিজার্ভার তৈরি করে পানি সংকট মোকাবেরার প্রকল্প নিয়েছেন। পর্যায়ক্রমে দেশের সব নদী ,নালা খাল ও বিল সংষ্কার করে পানি রিজার্ভারের ব্যবস্থা করা হবে। একারণে কোন নদ নদী সংস্কার বাকী থাকবে না। চলতি শুম্ক মৌসুমে দুই হাজার এক’শ এবং দুই হাজার ছয়’শ কোটি টাকা ব্যয়ে দুটি মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

কবির বিন আনোয়ার বলেন, সারাদেশে বিভিন্ন নদী দখলকারী ৪৪ হাজার অবৈধ স্থাপনার তালিকা তৈরি করা হয়েছে। আগামী ২৩ ডিসেম্বর থেকে এসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ কাজ শুরু করা হবে। পাশাপাশি পর্যায়ক্রমে ১১ হাজার নদী ও খাল খনন করা হচ্ছে। এভাবে নদীর স্বাভাবিক প্রবাহ নিশ্চিত করে দূষণ রোধ করা হবে।

পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব আরো বলেন, বর্তমান সরকার পানি আইন-২০১৩ প্রণয়ন করেছে। আইন মন্ত্রণালয়ে আইনের বিধি তৈরির কাজ শেষের পথে। আমরা দ্রুত এই আইনের যথাযথ বাস্তবায়ন নিশ্চিত করবো। দেশের ১১ হাজার নদী ও খালের মধ্যে প্রথম পর্যায়ে ৪৪৮টি খনন কর হচ্ছে। দ্বিতীয় পর্যায়ে দুই হাজার ১০০ এবং পর্যায়ক্রমে সবকটি খনন করা হবে। পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনাকে সক্রিয় করতে পারলে দেশের জিডিপি ১০ শতাংশে পৌঁছে যাবে।

নাটোরের জেলা প্রশাসক মো. শাহরিয়াজের সভাপতিত্বে সভায় নাটোর সদর ও নলডাঙ্গা আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল, নাটোর-১ আসনের সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুল, সিরাজগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য ড. আব্দুল আজিজ, পানি উন্নয়ন বোর্ডের উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী মোহাম্মদ আলীসহ নাটোর, নওগাঁ, রাজশাহী, পাবনা, সিরাজগঞ্জ জেলার বিভিন্ন উপজেলার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানবৃন্দ, পৌরসভার মেয়র ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।