ছবি: প্রতীকী

নিউজ ডেস্ক: নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে ফের এক নারীর সঙ্গে মধ্যযুগীয় বর্বরতার ঘটনা ঘটেছে। অবৈধ প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তার ঘরে ঢুকে তাকে নগ্ন করে দফায় দফায় শারীরিকভাবে নির্যাতন করেছে বখাটেরা এমন একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকে।

গত ২০-২১ দিন আগের ঘটনা হলেও রোববার (৪ অক্টোবর) ফেসবুকে ভাইরাল হয় বিষয়টি। এ ঘটনায় রবিবার বিকালে আবদুর রহিম (২২) নামে এক যুবককে আটক করেছে বেগমগঞ্জ থানা পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করে নোয়াখালীর পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেন

ভিডিওতে দেখা যায়, দেলোয়ার বাহিনীর প্রধান দেলোয়ার, বাদল, কালাম ও আবদুর রহিমসহ পাঁচ জন যুবক ওই নারীকে বিবস্ত্র করে। এছাড়া ঘটনার সাথে জড়িত বেশ কয়েকজনকে পুলিশ খুঁজছে। বর্তমানে ওই নারী জেলা পুলিশ সুপারের দপ্তরে হেফাজতে রয়েছেন। সেখানে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

ভিডিও চিত্রে আরো দেখা যায়, ওই গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে তার মুখমন্ডলে লাথি দেয় এবং বেধড়ক মারধর করার দৃশ্য ধারণ করে ফেসবুকে ভাইরাল করে। ভিডিও ধারণের সময় গৃহবধূ বখাটেদের বহুবার পায়ে ধরে এবং বাবা-বাবা বলে ডাকলেও, ভিডিওধারণ বন্ধ রাখেনি।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ২০-২১ দিন আগে বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাসপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের নুর ইসলামের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। নুর ইসলামের মেয়ের (ভিকটিম) সাথে তার স্বামীর পারিবারিক বিরোধ থাকায় তেমন বনাবনি ছিল না। এই সুযোগে স্থানীয় বখাটেরা তাকে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এক পর্যায়ে তিনি রাজি না হওয়ায় বখাটেরা ঘটনার দিন রাতে তার ঘরে ঢুকে নগ্ন করে নির্যাতন করে। কিন্তু সম্প্রতি ঘটনাটি ফেসবুকে ভাইরাল হলে এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়।

বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর তা নোয়াখালীর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আলমগীর হোসেনের নজরে আসলে এ বিষয়ে তড়িৎ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসিকে নির্দেশ প্রদান করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে নোয়াখালীর পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেন বলেন, অবৈধ প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় বখাটেরা এমন ঘটনা ঘটিয়েছে। একজনকে আটক করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।