pratidinbd.com

বিশেষ প্রতিবেদক: শহীদদের স্বরণে দোয়া মাহফিলে আওয়ামী নেতাকর্মীদের আসতে বাধা দেয়ার অভিযোগ করে নাটোরের সিংড়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম (ভিপি শফিক) বলেছেন, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ভোটে জয়ী হয়ে নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নিলে তার ফল ভাল হবে না। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের কথা বলেন আর শেখ হাসিনার মানুষদের দোয়া মাহফিলে আসতে বাধা দেন, বঙ্গবন্ধুর মানুষদের নামে মামলা দেন। এগুলো বন্ধ করেন।

বুধবার (২৬ আগস্ট) সিংড়া উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের আয়োজনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সকল শহীদ এবং ২১ শে আগস্ট গ্রেনেড হামলায় শহীদদের স্বরণে শোক র‌্যালী, দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর আগে সকালে একটি বিশাল শোক র‌্যালী শহর প্রদক্ষিণ করে।

পরে পৌর কমিউনিটি সেন্টারে দোয়া ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যাপক শামসুল ইসলাম। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন সিংড়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম ভিপি শফিক।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ষড়যন্ত্রে খন্দকার মোশতাক জড়িত ছিলো, সেই খন্দকার মোশতাকরা এখনো আছে। প্রধানমন্ত্রীকে ২৬ বার হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে, তবে রাখে আল্লাহ মারে কে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভোটের ও ভাতের রাজনীতিতে সফল। দেশের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার যুদ্ধে তিনি জয়ী।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী ও স্থানীয় সাংসদ এড. জুনাইদ আহমেদ পলককে ইঙ্গিত করে শফিক বলেন, জনতার শ্রোত বাধা দিয়ে বন্ধ করা যায় না। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের কাছে চক্রান্তকারীদের শক্তি অসহায়। আপনি আওয়ামী লীগের ভোটে নির্বাচিত হয়ে বিএনপি- জামায়াতের সাথে সক্ষতা করে চলেন। বিভক্তির আওয়াজ দিবেন না, বিভেদের আওয়াজ দিবেন না। আওয়ামী লীগের রাজনীতি করতে চাইলে জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়ে রাজনীতি করতে হবে। অনৈক্যের কথা বলে সিংড়ায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবেন না।

পৌর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান রঞ্জুর সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সম্পাদক আদনান মাহমুদের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা জালাল উদ্দিন, ক্রীড়া সম্পাদক আক্কাস আলী, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওদুদ দুদু, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক খ.ম. মশিউর রহমান, আইন বিষয়ক সম্পাদক খলিলুর রহমান, সহ- দপ্তর সম্পাদক রেজাউল করিম, উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি আনিসুর রহমান প্রমুখ।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, যুবলীগ নেতা হাফিজুর রহমান সবুজ, আবুল কালাম, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শামসুল আলম সামী, কামরুল সরকার প্রমুখ। পরে শহীদদের দোয়া মাহফিলে নেতাকর্মীদের আসতে প্রতিমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বাধা দেয়ার অভিযোগ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান শফিক।

উল্লেখ্য, গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলামের নীরব বিরোধ চলে আসছে।

কৃতজ্ঞতা: মো. আবু জাফর সিদ্দিকী