নিউজ ডেস্ক: পাবনা-৪ (ঈশ্বরদী-আটঘরিয়া) আসনের উপনির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন পেয়েছেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও পাবনা জেলা বিএনপির আহবায়ক হাবিবুর রহমান হাবিব। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার (৩১ আগস্ট) দলের মনোনয়ন বোর্ডের সভায় ধানের শীষের প্রার্থী হিসেবে তাকে চূড়ান্ত করা হয়। এর আগে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও এ আসনে বিএনপির মনোনয়ন পেয়েছিলেন তিনি।

গত রোববার পাবনা-৪ আসনের উপনির্বাচনে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন পেতে আবেদনপত্র সংগ্রহ করেন হাবিবুর রহমান হাবিব ও পাবনার শ্রমিক দলের নেতা আহসান হাবিব। সোমবার তারা আবেদনপত্র জমা দেন। এদিন বিকালে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা মনোনয়ন বোর্ডের কাছে সাক্ষাতকার দেন।

জানা গেছে, সোমবার বিকাল ৫টা থেকে দেড় ঘণ্টা ধরে চলা ভার্চুয়াল মনোনয়ন বোর্ড সভায় লন্ডন থেকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান সভাপতিত্ব করেন। সভায় নিজ নিজ বাসা থেকে অংশ নেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

মনোনয়ন বোর্ডের সভা শেষে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে মনোনয়ন বোর্ড তথা স্থায়ী কমিটি পাবনা-৪ আসনে হাবিবুর রহমান হাবিবকে মনোনয়ন দিয়েছে।

পরে হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর পাবনা-৪ আসনের জনগণ সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান, দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী খালেদা জিয়া ও তারুণ্যের অহংকার আমাদের কাণ্ডারি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের দল বিএনপির প্রতীক ধানের শীষকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবে। সরকারকে এই নির্বাচনে কোনো প্রকার কারচুপি-কারসাজি না করার আহবানও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর পাবনা-৪ আসনের উপ-নির্বাচন। গত ২ এপ্রিল পাবনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য সাবেক ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর মৃত্যুতে আসনটি শূন্য হয়। এর মধ্যে ২৩ আগস্ট নির্বাচন কমিশনের (ইসি) ৬৮তম কমিশন সভা শেষে পাবনা-৪ আসনের উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন ইসির সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর।

তফসিল অনুযায়ী, এই আসনে উপনির্বাচনে মনোননয়পত্র দাখিলের শেষ তারিখ ২ সেপ্টেম্বর, মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই করা হবে ৩ সেপ্টেম্বর। বাছাইয়ে মনোনয়নপত্র বাতিল হলে তার বিরুদ্ধে আপিল দাখিল করা যাবে ৪ থেকে ৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। ৭ সেপ্টেম্বর আপিল নিষ্পত্তির পর ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে পারবেন প্রার্থীরা।

২৬ সেপ্টেম্বর সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলবে। রাজশাহী বিভাগের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তাকে এই উপনির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া পাবনা সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে ঈশ্বরদী উপজেলা ও রাজশাহীর অতিরিক্ত আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইদুর রহমানকে আটঘরিয়া উপজেলার সহকারী রিটার্নিং অফিসার নিযুক্ত করা হয়েছে।