নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার বিয়াঘাট ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামে পুত্রবধূর নির্যাতনের শিকার অসহায় বৃদ্ধ দম্পতির পাশে মানবিক সাহায্যের হাত বাড়াল থানা পুলিশ। ছবি: মো. আখলাকুজ্জামান

বিশেষ প্রতিবেদক: নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার বিয়াঘাট ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামে পুত্রবধূর নির্যাতনের শিকার অসহায় বৃদ্ধ দম্পতির পাশে মানবিক সাহায্যের হাত বাড়াল থানা পুলিশ।

মঙ্গলবার (২৩ জুন) দুপুরে একদল পুলিশ সদস্য নিয়ে বৃদ্ধ খোরশেদের বাড়িতে যান ওসি মো. মোজাহারুল ইসলাম। বৃদ্ধ জীবন যে কত কষ্টের তা খোরশেদের (৯০) পরিবারকে দেখলে বোঝা যায়। স্ত্রী আয়শাসহ বসবাসের অযোগ্য একটি ছাপরা ঘরে কোনোমতে থাকেন তিনি।

তাদের তিন ছেলে ও দুই মেয়ে। সবার বিয়ে হয়েছে। সন্তানরা যে যার মত আলাদা থাকেন। বড় দুই ছেলে থাকেন ঈশ্বরদীতে। ছোট ছেলে বাহার উদ্দিনের সাথে থাকেন তারা। বাহার (৪৬) স্ত্রীসহ ইটের পাকা ঘরে থাকলেও বৃদ্ধ বাবা মা থাকেন জোড়াতালি দেওয়া ভাঙা ছাপরা ঘরে।

পুত্রবধূ মঞ্জু বেগম (৩৫) তার বৃদ্ধ শশুর শাশুড়ীকে মাঝেমধ্যেই মারধরসহ নানাভাবে নির্যাতন করে আসলেও বাহার কোনো পক্ষেই কথা বলতো না। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক।

সোমবার ওই অসহায় দম্পতি পুত্রবধূর নির্যাতনের বিরুদ্ধে গুরুদাসপুর থানায় অভিযোগ দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ওসি মোজাহারুল ইসলাম মঙ্গলবার দুপুরে ঘটনাস্থল বৃদ্ধ দম্পতির বাড়িতে যান।

এসময় অভিযুক্ত মঞ্জু বেগম পুলিশের সামনে শশুর শাশুড়ীর পা ধরে ক্ষমা চাইলে প্রতিবেশিদের অনুরোধে তাকে প্রথমবারের মত মাফ করে দেওয়া হয়। সেই সাথে পুলিশের নিজস্ব তহবিল থেকে নগদ অর্থসহ খাদ্যসামগ্রী দেওয়া হয় বৃদ্ধ খোরশেদের পরিবারকে।

কৃতজ্ঞতা: মো. আখলাকুজ্জামান