রোববার (০৮ ডিসেম্বর) বরিশাল নগর আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক এ কে এম জাহাঙ্গীরকে সভাপতি এবং বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

নিজস্ব প্রতিবেদক: বরিশাল নগর আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক এ কে এম জাহাঙ্গীরকে সভাপতি এবং বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। এর আগে অ্যাডভোকেট একেএম জাহাঙ্গীর বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাদিক আব্দুল্লাহ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

রোববার (০৮ ডিসেম্বর) মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশন শেষে বিকেল ৪টার দিকে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের-এমপি তিন বছরের জন্য আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সম্পাদক হিসেবে তাদের নাম ঘোষনা করেন। একই সাথে বর্তমান কমিটির সভাপতি এ্যাডভোকেট গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলালকে আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য ঘোষনা করেন ওবায়দুল কাদের।

সম্মেলনের উদ্বোধক ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, প্রধান বক্তা জাতীয় নির্বাহী কমিটির জ্যেষ্ঠ সদস্য আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ, বিশেষ অতিথি ছিলেন দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান। এছাড়া সাংগঠনিক সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, আইনবিষয়ক সম্পাদক, গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহান আরা আব্দুল্লাহ, বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি তালুকদার মো: ইউনুস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে ২০১২ সালের ২৭ ডিসেম্বর বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ওই সম্মেলনে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে শওকত হোসেন হিরন এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে অ্যাডভোকেট আফজালুল করিম নির্বাচিত হয়েছিলেন। পরে শওকত হোসেন হিরন মারা গেলে ২০১৬ সালে ২০ অক্টোবর মহানগর আওয়ামী লীগের ৭১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত হয়। ওই কমিটিতে অ্যাডভোকেট গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলালকে সভাপতি, অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক এবং সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহকে যুগ্ম সম্পাদক করা হয়। গত ১৯ অক্টোবর নগর আওয়ামী লীগের এ কমিটির মেয়াদ শেষ হয়। সে হিসাবে টানা সাত বছর পরে বরিশাল নগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন হলো।