নিউজ ডেস্ক: নাটোরের বাগাতিপাড়ায় অর্ঘ্য কুমার ধর ওরফে তনু ও সুজন নামে দুই যুবক নিজেদের পূর্ণিমা রানী দাস নামের এক কলেজছাত্রীর প্রেমিক দাবি করে হাতাহাতির পর প্রেমের সম্পর্ক ফাঁস হওয়ায় পূর্ণিমা রানী দাস (১৭) নামের সেই কলেজছাত্রী বিষপানে আত্মহত্যা করেছে বলেছে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার (২৭ আগস্ট) ময়নাতদন্ত শেষে তার লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। বিকালে শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হয় তার। এর আগে বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার জামনগর মাঝিপাড়া গ্রামে এই আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। পূর্ণিমা রাণী মাঝিপাড়া গ্রামের বাদল দাসের মেয়ে। তিনি জামনগর ডিগ্রী কলেজের একাদশ শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী ছিলেন। অভিযুক্ত অর্ঘ্য কুমার ধর ওরফে তনু জামনগর ডিগ্রী কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী বলে জানা গেছে। সুজনের বিস্তারিত পরিচয় পাওয়া যায়নি।

স্থানীয় সূত্রের বরাত দিয়ে জামনগর ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বর আফতাব উদ্দিন জানান, বুধবার বিকালে জামনগর ডিগ্রী কলেজ মাঠে পূর্ণিমা রাণী দাসের সাথে প্রেমের সম্পর্কের দাবিতে অর্ঘ্য কুমার ধর ওরফে তনু এবং সুজন নামের দুই যুবকের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। দু’জনেই নিজেকে পূর্ণিমা রাণীর প্রেমিক দাবি করেন। পরে ইউপি মেম্বার আফতাব উদ্দিনের উপস্থিতিতে তাদের মধ্যে মীমাংসা হয়।

বিষয়টি পূর্ণিমা রাণীর পরিবারের লোকজনের মধ্যে জানাজানি হলে লজ্জায় বুধবার সন্ধ্যায় সবার অলক্ষ্যে নিজ বাড়িতে বিষপান করেন তিনি। বিষপানের ব্যাপারে জানতে পেরে পরিবারের সদস্যরা রাতে পার্শ্ববর্তী পুঠিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে পুঠিয়া থানার ওসি রেজাউল করিম বলেন, রাতেই লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে একটি ইউডি মামলা হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে বৃহস্পতিবার বিকালে জামনগর শ্মশানে লাশ দাহ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।