নিউজ ডেস্ক: নাটোরের বড়াইগ্রামে ধর্ষণ ও ধর্ষণ চিত্র ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে জুলফিকার আলী (৫৫) নামের এক প্রাইভেট শিক্ষককে আটক করেছে বড়াইগ্রাম থানা পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দিলিপ কুমার দাস।

শনিবার (২৭ জুন) উপজেলার খাকসা গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়। আটক শিক্ষক উপজেরার খাকসা গ্রামের মৃত মোজাহার সরকারের ছেলে।

বড়াইগ্রাম থানা সুত্রে জানা যায়, তিন বছর ধরে প্রাইভেট পড়ানোর কৌশলে মেয়েটির সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে একাধিকবার ধর্ষণ করে মোবাইল ফোনে অশ্লীল ছবি ধারণ করেছেন জুলফিকার আলী। অশ্লীল ছবি শিক্ষকের মোবাইল ফোন হতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিলে ভাইরাল হয়ে যায়। পরে মেয়েটির বাবা থানায় অভিযোগ করলে অভিযুক্ত জুলফিকার আলীকে আটক করে পুলিশ।

ভুক্তভোগী মেয়েটি বলেন, আমাকে কৌশলে ফাঁদে ফেলে ধর্ষণ করে অশ্লীল ছবি মোবাইল ফোনে ধারণ করেন জুলফিকার আলী। পরে ঐ ছবির ভয় দেখিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করেন তিনি।

তবে অভিযুক্ত শিক্ষক জুলফিকার আলী বলেন, মেয়েটির সাথে প্রায় দুই বছর আগে সম্পর্ক গড়ে উঠে। উভয়ের ইচ্ছাতেই শারীরিক সম্পর্ক হয়ে। তবে তাকে বাধ্য করার বিষয়টি সঠিক নয় বলে দাবি করেন তিনি।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দিলিপ কুমার দাস বলেন, অভিযুক্ত শিক্ষককে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান তিনি।