নিউজ ডেস্ক: নাটোরের বড়াইগ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় নারীসহ চারজনকে পিটিয়ে বাড়ির মালামাল লুটপাট করার অভিযোগ উঠেছে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) উপজেলার মাড়িয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এসময় বাড়ি বিভিন্ন আসবাব পত্র ভাংচুর করে নগদ ৫০ হাজার টাকা ও দুইটি স্বর্ণের চেইন নিয়ে যায় হামলাকারীরা।

হামলায় আহতরা হলেন, উপজেলার মাড়িয়া গ্রামের নফেজ প্রামানিকের ছেলে একাব্বর আলী (৫০), একাব্বর আলী স্ত্রী খালেদা বেগম (৪৫) মেয়ে আখি (২৫), মনোয়ারা (৪৫) । আহতদের উদ্বার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতদের ভাষ্য মতে অভিযুক্তরা হলেন, আফাজ উদ্দিনের ছেলে রমজান প্রামানিক (৫০), ইয়াছিন প্রামানিক (৪৫) নুর মোহাম্মদ (৪৮) নজরুল প্রামানিক (৪৭) ও তার ছেলে মেহেদী হাসান (২৮), মৃত আনছার আলীর ছেলে মোজাফ্ফর আলী (৩৮) এশারতের ছেলে আব্দুল লতিফ।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, মাড়িয়া গ্রামের একাব্বর আলী বাড়ি ও আশেপাশে ৩২ শতাংশ মালিক। তার কোন ছেলে সন্তান না থাকায় বাড়ির ৪ শতাংশ ছাড়া বাকী জমির দীর্ঘদিন দখল দেয় না রমজান ও তার ভাইয়েরা। সম্পতি স্থানীয় উকিল নিযুক্ত করে বিষয়টি মিটমাট করা হয়। ইউনিয়ন পরিষদের আমিন নিযুক্ত করে সীমানা নির্ধারণও করা হয়। একাব্বরের ঘরের বারান্দা নষ্ট হয়ে যাওয়ায় আজ সকালে মেরামতের লক্ষ্যে মিস্ত্রী আনা হয়। এসময় রমজান ও তার ভাইয়েরা এসে এক্কাবরের স্ত্রী ও মেয়েকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মারপিট করে বাড়ি ঘর লুটপাট করে নিয়ে যায়। মারপিট করে যাওয়ার সময় আকবর আলী নামের এক ব্যক্তিকে গণধোলাই দেয় এলাকাবাসী।

এক্কাবর আলী আরো বলেন, আমার প্রাপ্য জমি দীর্ঘদিন তারা দখল করে রেখেছে। ইউনিয়ন পরিষদের আমিন দিয়ে সীমানা নির্ধারণ করে দেওয়ার পরেও আমার স্ত্রী ও মেয়েকে আজ মারপিট করা হল। আমি এর বিচার চাই।

বড়াইগ্রাম থানার পরিদর্শক দিলীপ কুমার দাস বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। থানায় কেউ অভিযোগ করে নাই। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।