ছবি: আরিফুল ইসলাম

বিশেষ প্রতিবেদক: গত মাসের মাঝামাঝিতে হঠাৎ করেই নলডাঙ্গা বারনই নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হলে পারভেজের ঘর বাড়ি ডুবে যায়। ফলে গর্ভবতী মেয়ে সুরাইয়া সহ পরিবারের পাঁচ সদস্যকে নিয়ে আশ্রয় নেন শ্যামনগর গ্রামের বিনছের আলীর বাড়িতে।

খবর পেয়ে নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবদুল্লাহ আল মামুন ডাক্তার ও পুষ্টিকর খাবার সহ সহযোগিতা করেন এবং আশ্বাস দেন সুরাইয়ার বাচ্চা প্রসব পর্যন্ত যাবতীয় ব্যবস্থা তিনি করে দিবেন। অবশেষে নলডাঙ্গার বিসমিল্লাহ ক্লিনিকে মা হয়েছেন সেই সুরাইয়া।

বিসমিল্লাহ ক্লিনিকের পরিচালক আনোয়ার হোসেন বলেছেন, এক ফুটফুটে মেয়ের জন্ম দিয়েছেন সুরাইয়া। মা ও মেয়ে দুজনই সুস্থ আছে। সব কিছুর ব্যবস্থা করে দিয়েছেন ইউএনও মামুন স্যার।

শনিবার বিকালে নলডাঙ্গা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আলীমসহ মা ও মেয়ে দেখে এসেছেন এবং ব্যক্তিগত ভাবে আর্থিক সহায়তাও করেছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মামুন বলেন, বন্যায় ঘর বাড়ি হারিয়ে তারা প্রচণ্ড বিপর্যয়ের মধ্যে পড়ে গিয়েছিল। একজন মানুষ হিসেবে চেষ্টা করেছি অসহায় মানুষগুলোর পাশে দাঁড়াতে।

সম্প্রতি সুরাইয়া ফুটফুটে একটি মেয়োর জম্ম দিয়েছে। এটিই সকলের জন্য বড় পাওয়া। বানভাসী গৃহহীন মানুষের মুখের হাসি ফুটিয়ে মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুন।

কৃতজ্ঞতা: আরিফুল ইসলাম