বিশেষ প্রতিবেদক: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি বলেছেন, যিনি আমাদেরকে স্বাধীনতা দিলেন। তার মৃত্যুর পর মুক্তিযুদ্ধের গৌরবগাঁথা ইতিহাস আমাদের দু’টি প্রজন্মকে ২১ বছর জানতে দেয়া হয়নি।

সোমবার (৩১ আগস্ট) সন্ধ্যায় কতুয়াবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভার প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, পাকিস্তানের বৈষম্য আমরা দেখিনি। আমরা যারা মুক্তিযুদ্ধের পরে জন্মগ্রহণ করেছি। আমরা দেখেছি ৭৫-এর পরের নির্যাতন। সেই নির্যাতন ছিল মুক্তিযুদ্ধে প্রকৃত ইতিহাস নিশ্চিহ্ন করার।

জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, বঙ্গবন্ধুর জীবন নিয়ে তার কর্মময় জীবন নিয়ে যতই আলোচনা করি। কিন্তু আমরা যদি আমাদের কর্মে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ যদি বাস্তবায়ন না করি তাহলে এটা শুধু বক্তব্য হয়েই থেকে যাবে। এটার কোন কার্যকর কিছু হবে না। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন একটি বৈষম্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার কথা। পাকিস্তানের বৈষম্যমূলক আচরণের বিরুদ্ধে ২৩ বছর আন্দোলন করেছেন বঙ্গবন্ধু।

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু ২৩ বছর আন্দোলন সংগ্রাম করে ৫৫ বছর বয়সের ১৪টি বছর জেলের কারা অভ্যন্তরে কাটিয়েছিলেন। দুই দুইবার মৃত্যুর সম্মূখীন হয়েছেন। সেই নেতাকে যারা হত্যা করল। তাদের হত্যার কোন বিচার করা যাবে না। আমরা সেই কালো আইনের মধ্যে বড় হয়েছি।

প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, ৭৫-এর পর বঙ্গবন্ধুকে যারা হত্যা করেছিল সেই খুনি জিয়াউর রহমান, এরশাদ তারপর খালেদা জিয়া সরকার ৩৭ বছর আমাদের নতুন প্রজন্মের সামনে ইতিহাসকে বিকৃত করে উপস্থাপন করেছে। এই অপরাধ একটি ভয়াবহ অপরাধ।

সভায় আরো বক্তব্য রাখেন সিংড়া পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌস, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ওহিদুর রহমান শেখ,আওয়ামী লীগ নেতা বিশ্বনাথ দাস কাশিনাথ, পৌরসভার ১১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মিজানুর রহমান, ১২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর কাউন্সিলর নওশাদ আলী মোল্লা, প্রধান শিক্ষক শারদুল ইসলাম প্রমুখ।

কৃতজ্ঞতা: রাজু আহমেদ