নিউজ ডেস্ক: নাটোরের লালপুর উপজেলার গোপালপুর পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি রোকসানা মোর্তুজা লিলির নামে ভুয়া ফেসবুক আইডি ব্যবহার করে নানারকম অশ্লীল ও আপত্তিকর তথ্য ও ছবি ছড়ানোর দায়ে সাহাবুল ইসলাম (২৭) নামের এক আনসার সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ।

রোববার (২৮ জুন) এ ঘটনায় রোকসানা মোর্তুজা লিলি বাদী হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৬ ও ২৯ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে আসাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায় পুলিশ। আটক সাহাবুল ইসলাম (২৭) পৌর এলাকার কেশবপুর গ্রামের মোঃ বজলুর রহমানের ছেলে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ১০ জুন আনুমানিক সকাল ১১ টায় পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি রোকসানা মোর্তুজা লিলির নাম ও ছবি হুবহু ব্যবহার করে একটি ফেসবুক আইডি থেকে বিভিন্ন অশ্লীল অসামাজিক ও আপত্তিকর তথ্য ছড়ানো শুরু হয়। ঘটনা পরিলক্ষিত হলে পরেরদিন দিন রোকসানা লিলি লালপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

পরে লালপুর থানা পুলিশ সেই অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেন। এরপর ফেক আইডিতে ব্যবহৃত মোবাইল নম্বর শনাক্ত করে কেশবপুর মহল্লার হায়দার আলী নামের একজনকে আটক করা হয়। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা যায় তার মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করে তার বন্ধু স্থানীয় আনসার-ভিডিপি সদস্য সাহাবুল ফেক আইডি ব্যবহার করছেন।

কিন্তু সাহাবুলের বিরুদ্ধে কোন প্রমাণ না থাকায় তৎক্ষণাৎ তাকে গ্রেপ্তার করা যায়নি। পরে নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহার দিক নির্দেশনায় গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনারুল ইসলাম তদন্তভার গ্রহণ করে আসামি সাহাবুলের ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বারটিকে প্রযুক্তির সাহায্যে ট্র্যাকিং করে সন্দেহভাজন মনে হয়।

পরে সাহাবুলকে ডিবি পুলিশ গতকাল (রোববার) গোপালপুর বাজারের খন্দকার ইলেকট্রনিক্স থেকে তার ব্যবহৃত একটি ল্যাপটপ ও তিনটি মোবাইল ফোনসহ আটক করে। পরবর্তীতে তাকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে ঘটনার দায় স্বীকার করে।

এ ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৬ ও ২৯ ধারায় বাদী হয়ে রোকসানা মোর্তুজা লিলি একটি মামলা দায়ের করেন। পরে আসাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায় পুলিশ।