নিউজ ডেস্ক: নাটোরের সিংড়ায় মুফতি রমিজুল করিম নামের এক মাওলানার বিরুদ্ধে সুদের টাকার জন্য আব্দুর সামাদ নামের এক গার্মেন্টস কর্মীর লাশ দাফনে বাধা ও তার পরিবার এবং বৃদ্ধ পিতাকে প্রাণনাশের হুমকির দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সোমবার (১০ আগস্ট) এ বিষয়ে সিংড়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিংড়া থানার ওসি নুরে আলম সিদ্দিকী। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে মুফতি রমিজুল করিম বলেন, সুদের টাকার জন্য কাউকে হুমকি ও লাশ দাফনে বাধার কোন ঘটনা ঘটেনি।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সিংড়া উপজেলার ইটালী ইউনিয়নের তুলাপাড়া বাঁশবাড়িয়া গ্রামের জমসেদ আলীর পুত্র মরহুম আব্দুর সামাদ (৫০) ঢাকা গার্মেন্টসে শ্রমিক ছিলেন। গত জুলাই ঈদ পালন করতে বাড়িতে আসেন। কিন্তু হঠাৎ গত ১ আগস্ট বিকাল সাড়ে ৪টায় হৃদরোগে আক্রান্তে তার মৃত্যুবরণ করেন।

পরে বাদ মাগরিব মৃত আব্দুস সামাদের লাশ ঈদগাহ্ মাঠে দাফনের প্রস্তুতি নেয়া হলে খবর পেয়ে একই গ্রামের লোকমান হোসেনের ছেলে হাফেজ মাও. মুফতি রমিজুল আন নাসারী (৩৫) পাওনা সুদসহ প্রায় ৪০ হাজার টাকার দাবিতে লাশের জানাজা দিতে বাধা দেন।

গ্রামবাসী ও স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল মজিদ বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দিলেও মুফতি রমিজুল করিম না মানায় গ্রামবাসী জোরপূর্বক ঈদগাহ্ মাঠে জানাজার নামাজ শেষে বাঁশবাড়িয়া কেন্দ্রীয় কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করেন। কিন্তু টাকার জন্য ক্রমাগত চাপ প্রয়োগ করায় মৃত আব্দুর সামাদের পিতা জমছেদ আলী সোমবার রমিজুলের বিরুদ্ধে সিংড়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

মরহুমের পিতা জমসেদ আলী বলেন, টাকার বিষয়টি আমার জানা ছিলো না। মুফতি রমিজুল করিম হঠাৎ আমার ছেলের জানাজা করতে বাধা দেন। সুদসহ আসল টাকা না পেলে আমার নাতি হাফেজ সেলিম রেজা ও আমাকে মারপিট ও প্রকাশ্যে প্রাণনাশের হুমকিও দিয়ে আসছেন। ক্রমাগতভাবে আমার বাড়িতে সুদের টাকার জন্য চাপ দিচ্ছেন তিনি।

এদিকে অভিযুক্ত মুফতি রমিজুল করিম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সুদের টাকার জন্য কাউকে হুমকি ও লাশ দাফনে বাধার কোন ঘটনা ঘটেনি। ঢাকার একটি মাদরাসায় চাকরি করি ঈদের পরদিনই ঢাকায় এসেছি। আমি ৩ বছর আগে মৃত ব্যক্তি আব্দুর সামাদের ১ বিঘা জমি লিজ বাবদ লিখিত একটি টেম্পের মাধ্যমে ৩৩ হাজার টাকা দেই এবং তাকেই জমি বর্গা দেই। সেই সূত্রে বছরে ১০ মন ধান দেয়ার কথা থাকলেও দেয়নি। হঠাৎ সামাদের মৃত্যুর কথা শুনে জানাজায় অংশ নিয়ে গ্রামবাসীর সামনে পাওনা টাকার কথা বলতেই মৃত ব্যক্তির স্বজনরা অস্বীকার করে আমাকে টাকা দেবে না বলে মারপিট করে মাঠ থেকে তাড়িয়ে দেন।

এ বিষয়ে সিংড়া থানার ওসি নুরে আলম সিদ্দিকী বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।